পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি হবে: স্মৃতি ইরানি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | September 11, 2019 | 3:26 pm

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ৩১ আগস্ট  অসমে নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। তালিকায় বাদ গিয়েছেন প্রায় ১৯ লক্ষ মানুষ। মঙ্গলবার কলকাতায় এসে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি বলেন এনআরসি বিজেপির ঘোষিত সিদ্ধান্ত, তাই বাংলা-সহ সারা দেশে এনআরসি হবেই। এনআরসি নিয়ে যতই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধিতা করুন, বিজেপি তাতে দমে যাবে না। এনআরসির উদ্দেশ্য কাউকে তাড়ানোর আগে সমস্ত ভারতীয়দের স্বার্থরক্ষা করা। কোন ভারতীয় যেন নাগরিকত্ব থেকে বাতিল না হয়ে যায় সেটা আগে সুনিশ্চিত করতে হবে।স্মৃতি জানান, বাংলায় নাগরিকপঞ্জি করার ব্যপারে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ কেন্দ্র।

[আরও পড়ুন: দিদির বাধায় কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন না বাংলার আম জনতা, তোপ স্মৃতি ইরানির]

মোদি সরকারের ১০০ দিন উপলক্ষে কলকাতায় এসেছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ইরানি। শহরে এসে মোদি সরকারের সাফল্যের খতিয়ান দেন নারী ও শিশু কল্যাণ মন্ত্রী। তাঁর বক্তব্যের মূল এজেন্ডা ছিল কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বাতিল এবং এনআরসি। নাগরিকপঞ্জি ইস্যুতে তিনি বলেন, “অনুপ্রবেশকারীদের আটকাতে পশ্চিমবঙ্গ-সহ গোটা দেশে এনআরসি হবে। এটা বিজেপির ঘোষিত কর্মসূচি।” স্মৃতি আশ্বস্ত করেছেন, এনআরসি হলেও একজনও বৈধ ভারতের নাগরিককে দেশ ছেড়ে যেতে হবে না। তবে, অনুপ্রবেশকারীরা রেহাই পাবেন না। এনআরসি ইস্যুতে তৃণমূলের বিরোধিতাকেও এদিন কাঠগড়ায় তোলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। স্মৃতির বক্তব্য, “একটা সময় ভুয়ো ভোটার কার্ড আটকাতে, সচিত্র ভোটার কার্ডের পক্ষে সওয়াল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এটা মমতার দ্বিচারিতা।”

উল্লেখ্য, এনআরসি ইস্যুতে শুরু থেকেই বিরোধিতা করে এসেছেন এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। তিনি শুরু থেকেই কেন্দ্রের এই পদক্ষেপকে বাঙালি-বিরোধী বলে মন্তব্য করছেন। এনআরসির প্রথম তালিকা প্রকাশের পর চূড়ান্ত বিরোধিতা করেছিল তৃণমূল। এখনও নিজেদের অবস্থানে অনড় এরাজ্যের শাসকদল।

(shreyashree)

 

 

 

 

 

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট