নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে ফের সাংবাদিকদের জন্য কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী !

0
21
Kolkata: West Bengal Chief Minister Mamata Banerjee addresses during an organisational meeting of the State Government Employees` Federation, in Kolkata on Sep 13, 2019. (Photo: IANS)

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: ক্ষমতায় থাকার সময় বিভিন্ন প্রশাসন কখনো সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করে আবার কখনো তাদের বেশ কিছু সুযোগ-সুবিধা দিয়ে নিজেদের পক্ষে লেখার জন্য বা বলার জন্য পরোক্ষভাবে পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। ক্ষমতায় আসার পর সেই পথে আগেও হেঁটেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একই পদ্ধতিতে আবার মুখ্যমন্ত্রী শুক্রবার নেতাজি ইনডোরে সাংবাদিকদের জন্য কল্পতরু হয়ে ‘অনুদান প্রকল্প’ ঘোষণা করলেন কিনা, তা নিয়েও জল্পনা শুরু হয়েছে সাংবাদিক মহলে।

[ আরও পড়ুনঃ এনআরসি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করলেন মুকুল ]

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু মিডিয়ায় কর্মী ছাঁটাইয়ের কথা শোনা গিয়েছে। সেটা সত্যি না গুজব তা এখনও নিশ্চিত নয়। প্রশ্ন উঠছে, সেই কথাকে সামনে রেখে কি মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা করলেন, কোনও সাংবাদিকের চাকরি চলে গেলে দু’বছর ধরে প্রতিমাসে ১০০০০ টাকা করে অনুদান দেবেন তিনি। তবে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই সুবিধা থাকবে শুধুমাত্র সরকারি কার্ড অ্যাক্রিডেশন কার্ডের সাংবাদিকদের জন্য। যাদের নেই, তারা এই সুবিধা পাবেন না।

[ আরও পড়ুনঃ এটা গুন্ডামি হয়েছে, নবান্ন অভিযানে লাঠিচার্জ নিয়ে মহম্মদ সেলিম ]

বর্তমানে সরকারি কার্ডধারী সাংবাদিকরা পরিবহনে ও স্বাস্থ্যে কিছু ছাড় পান। তবে, ৩০ মার্চ ২০১৮ সালে বিজ্ঞপ্তি জারী করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা  ঘোষণা করেছিলেন – ৬০ বছর বয়সের পর সাংবাদিকরা পশ্চিমবঙ্গ সাংবাদিক পেনশন স্কিমের আওতায় মাসিক ২৫০০ টাকা করে পেনশন পাবেন। সেইসাথে সরকারি প্রেস কার্ডধারী সাংবাদিক, সরকারি প্রেস কার্ড না থাকলে রেজিস্টার্ড মিডিয়া প্রতিষ্ঠানে অন্তত ১৫ বছর কাজ করার নথি রয়েছে এমন সাংবাদিক, চিত্র সাংবাদিকরা অবসরের পর পেনশনের অধিকারী হবেন। এই প্রকল্পের আওতায় ওয়েব পোর্টালের সাংবাদিকদেরও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। চলতি বছরের পয়লা এপ্রিল এই প্রকল্প থেকেই কার্যকর এই প্রকল্প কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। জানা যাচ্ছে, সে প্রকল্পও এখনও চালু হয়নি।

[ আরও পড়ুনঃ সরকারী কর্মীদের জন্য সুখবর, বাড়ছে বেতন ]

শুধু তাই নয়, সম্প্রতি ২৩ জুলাই প্রেস ক্লাবের ৭৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে আসেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, প্রেস ক্লাবের একটি পাকাপাকি ভবন তৈরির জন্য দক্ষিণ কলকাতায় রুবির কাছে সাড়ে ৩ কাঠার জমি বরাদ্দ করেছে কেএমডিএ। প্রেস ক্লাবের সদস্যরা রাজি থাকলে ভবন তৈরির পরবর্তী কাজ শুরু করা যাবে। নতুন ভবন তৈরিতে সাহায্য করবে পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর। সে কাজেও কোনো গতি আসেনি।

[ আরও পড়ুনঃ হাইকোর্ট রক্ষাকবচ তুলতেই রাজীবের বাড়িতে সিবিআই, আগামীকাল হাজিরার নির্দেশ ]

পাশাপাশি স্থায়ী বাসস্থান নেই এমন সাংবাদিকদের ১০ কাঠা জমি দিতে চায় রাজ্য সরকার। সমবায় গঠন করে সেখানে ফ্ল্যাট তৈরি করতে পারবেন সাংবাদিকরা। প্রয়োজনে কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কের মাধ্যমে ঋণ দেবে কেএমডিএ। এমনকি মাভৈ প্রকল্পের সুবিধা পেতেন (চিকিৎসায় সরকারি প্রকল্প) সাধারণ সাংবাদিকদের পাশাপাশি এ দিন চিত্র সাংবাদিকদেরও ওই আওতায় আনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। যদিও সেসব প্রতিশ্রুতি এখনো কোনটাই বাস্তবায়িত হয়নি। তার মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর নতুন এই ঘোষণার উদ্দেশ্য কী, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সাংবাদিকদের বিভিন্ন মহলে।

Published by- sa.hamid

(Visited 3 times, 1 visits today)