হিন্দুদের এনআরসি থেকে বাদ দেওয়া নিয়ে আরএসএসের মেগা বৈঠক

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | September 7, 2019 | 8:50 pm
প্রতীকী ছবি।

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: অসামে এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রকৃত হিন্দু নাগরিকদের। এই বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে শনিবার আরএসএস তার সহযোগী সংগঠনগুলির সঙ্গে এক মেগা বৈঠকের আয়োজন করে। উল্লেখ্য, গত ৩১ আগস্ট এনআরসিতে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ যাওয়া নিয়ে আরএসএসের অনুমোদিত ‘সীমা জাগরণ মঞ্চে  এক সংক্ষিপ্ত ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।

আরএসএসের সহযোগী সংগঠনগুলি থেকে ২০০ জনেরও বেশি প্রতিনিধি লোকসভা নির্বাচনের পরে এই প্রথম সমন্বয় সভায় অংশ গ্রহন করেন। উপস্থিত ছিলেন বিজেপির কার্যকরী সভাপতি জেপি নদ্দা,  সাধারণ সম্পাদক বিএল সন্তোষ এবং সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব। সূত্রের খবর, ব্রিফিং চলাকালীন এনআরসিতে বাদ পরা নাগরিকদের বিষয় উপস্থাপিত হয়েছিল।  বিশেষ করে যারা প্রতিবেশী রাজ্য থেকে আসামে স্থায়ী বসতি স্থাপন করেছিল।

নেতাদের দাবি, ১৯ লক্ষ মানুষের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুরা বাদ পড়েছে এনআরসিতে। বিজেপির তরফেও এই চূড়ান্ত এনআরসি তালিকার সমালোচনা করা হয়েছে এবং বলা হয় যে সরকার ভারতীয় নাগরিকদের সুরক্ষার জন্য একটি আইন আনবে। এদিনের সভায় জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল এবং সেখানকার বর্তমান অবস্থান ও পরিস্থিতির বিষয়েও একটি প্রস্তাব উপস্থাপনা করা হয়।

সূত্রের খবর, এদিন নরেন্দ্র মোদি সরকারের ৩৭০ ধারা বাতিল করার সিদ্ধান্তের অত্যধিক প্রশংসা করেন সংঘের সদস্যরা। তাঁরা এই সিদ্ধান্তকে সংগঠনের আদর্শের সাথে সামঞ্জস্য রেখে সিদ্ধান্ত বলেও অভিহিত করেন। শনিবার আরএসএসের সাধারণ সম্পাদক সুরেশ ভাইয়াজী জোশীর বক্তৃতা দিয়ে শুরু হয় তিন দিনব্যাপী এই বৈঠকের ১৪ টি অধিবেশনের। জানা গিয়েছে, ৯ সেপ্টেম্বর সংঘের প্রধান মোহন ভাগবত এই বৈঠকের সমাপ্তির দিন বক্তৃতা রাখবেন। এই বৈঠকে পরিবেশ থেকে শুরু করে অর্থনীতি, বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর।

জানা গিয়েছে, ‘স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ’ এবং ‘ভারতীয় মজদুর সংঘ’ দেশের অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়ে সংক্ষিপ্ত প্রতিনিধিদের নাম দেবেন। পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা জমি সংক্রান্ত বিবাদ মামলার শুনানি বিষয়েও বিশদ বিবরণী করবে বলে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বলে খবর। লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির পারফরম্যান্স এবং তার সমাপ্ত সমাপ্ত সদস্যপদ অভিযানের বিশদ বিশ্লেষণও বৈঠকে করা হবে। আরএসএসের প্রচারক নরেন্দ্র কুমার বলেন, “এটি সংঘ এবং সংঘের অঙ্গসংগঠনের একটি সমন্বয় সভা মাত্র।  এই বার্ষিক সমাবেশে কোনও সিদ্ধান্ত বা প্রস্তাব পাস হয় না।        (মনোজ)

 

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট