অভিনেত্রী কে শ্লীলতাহানি,গ্রেফতার আরপিএফ জওয়ান

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | September 6, 2019 | 11:24 pm

নিজস্ব প্রতিনিধি,সোনারপুরঃ শিয়ালদহ দক্ষিন শাখায় লোকাল ট্রেনের কামরার মধ্যে এক মহিলা যাত্রীর সাথে অশালীন ব্যবহারের অভিযোগ উঠল আর.পি.এফের এক কনস্টেবলের বিরুদ্ধে।অভিযোগ, ভদ্রমহিলাকে একা পেয়ে কু প্রস্তাব দেন রেল নিরাপত্তারক্ষী। তাঁকে  জোর করে চুম্বন করেন, জড়িয়ে ধরেন। এ ব্যপারে সোনারপুর জি আরপিতে অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই নির্যাতিতা। ঘটনার তদন্তে নেমে আর.পি.এফের অভিযুক্ত কনস্টেবল সমরেশ মন্ডলকে গ্রেপ্তার করেছে সোনারপুর জি আরপি। তাকে শুক্রবার শিয়ালদহ আদালতে তোলা হয়।বিচারক অভিযুক্তকে জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। এদিনের ঘটনায় যথেষ্ট অশ্বস্থিতে রেলের আধিকারিকরা। পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক নিখিল চক্রবর্তী বলেন, ‘যথেষ্ট লজ্জাজনক ঘটনা। সমরেশ মন্ডল ও রাজেন্দ্রর কুমার দুই কনস্টবেলকেই সাসপেন্ড করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রেল।‘

 

বৃহস্পতিবার রাত ৮ টা ৪৬ মিনিটের আপ নামখানা লোকালে ওঠেন এক উঠতি অভিনেত্রী।মহিলা কামরায় লোকজন কম থাকায় তিনি জেনারেল কামরায় সফর করছিলেন।সেই কামরায় আর পি এফের দুজন কর্তব্যরত কনস্টেবল ছিলেন। অভিযোগ, ট্রেনটি লক্ষ্মীকান্তপুর ঢুকলে সমরেশ মন্ডল নামে আরপিএফের এক কনস্টেবল তাকে মহিলা কামরায় যেতে বলেন তার নিরাপত্তার জন্য।পুলিশের পরামর্শ মেনে ওই ভদ্রমহিলা মহিলা কামরায় গেলে তার পিছু নেন ওই দুই কনস্টেবলও যান।যদিও কামরায় আর কেউ ছিল না। সেই সুযোগে অভিযুক্ত কনস্টেবল সমরেশ মন্ডল তাকে জড়িয়ে ধরেন, কুপ্রস্তাব দেন। অভিনেত্রীর আরও অভিযোগ, সমরেশ ট্রেনের মধ্যেই মদ এবং সিগারেট খাওয়ার জন্য জোরাজুরি করেন। সমরেশ নিজেও মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন।

 

ভদ্রমহিলার দাবি, ট্রেনের মধ্যে এসব চলার সময়ই তিনি তাঁর স্বামী অভি রায়কে ফোন করেন তিনি। অভি রায় ১১ টা ১৫ মিনিট নাগাদ সোনারপুর জি আর পি তে চলে আসেন। সেখানে ডিউটি অফিসারকে অভি বলেন, তাঁর স্ত্রী শর্ট ফিল্ম, টেলি সিরিয়ালে কাজ করেন। একটি শ্যুটিং ইউনিটের সঙ্গে বকখালি গিয়েছেন। নামখানা থেকে শেষ লোকাল ধরে গড়িয়াতে ফিরছেন। কিন্তু ট্রেনের মধ্যেই তাঁর সাথে খারাপ ব্যবহার করছেন নিরাপত্তারক্ষী। রাত্রি প্রায় সাড়ে এগারোটা নাগাদ সোনারপুর জংশনে ট্রেন ঢুকলে জি আর পির নাইট পেট্রোলিং টিম ওই ভদ্রমহিলাকে উদ্ধার করেন এবং অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেন।

 

শুক্রবার নির্যাতিতা বলেন, ‘যাঁদের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা তাঁরাই একজন মহিলাকে একা পেয়ে কু প্রস্তাব দেন, জড়িয়ে ধরেন। আমি ওঁর কঠিন শাস্তি চাই।‘ শিয়ালদহ ডিভিশনের রেল নিরাপত্তার রক্ষীর সুপার অশেষ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘রাত ১১ টা ১৫ মিনিট নাগাদ এক ভদ্রলোক সোনারপুর জি আর পি তে গিয়ে জানান তাঁর স্ত্রী নামখানা-শিয়ালদহ লোকালে ফিরছেন এবং পুলিশের পোষাক পরা এক ভদ্রলোক তাঁকে ক্রমাগত উত্তক্ত করে চলেছেন। সেই অভিযোগ পেয়ে রাতেই সোনারপুর স্টেশনে নামখানা লোকাল ঢুকলে ওই ভদ্রমহিলাকে উদ্ধার করা হয় এবং অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়।‘

 

(firoz)

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট