স্কুল দোকান খুলেই মাথায় গুলি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 31, 2019 | 12:51 pm

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে উপত্যকা। কিন্তু কোথাও যেন স্বাভাবিক হয়েও হচ্ছে না উপত্যকার পরিস্থিতি । খুলেছে স্কুল-কলেজ, দোকানপাট। টান তিন সপ্তাহ যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধের পর চালু করা হয়েছে টেলিফোন। নিরাপত্তা বাহিনীর কড়া নজরবন্দির মধ্যেই রাস্তায় মানুষজন। এর মধ্যেই নিজেদের অস্তিত্ব জানান দেওয়ার চেষ্টা করছে কোণঠাসা জঙ্গিরা। সোপোরে এলাকার দোকানদারদের হুমকি দিচ্ছে জঙ্গিরা। হিজবুল মুজাহিদিনের হুমকি, দোকান খোলা যাবে না। গাড়ি বাইরে বের করতে নিষেধ করা হচ্ছে এলাকার ট্যাক্সি চালকদের।

হিজবুল মুজাহিদিনের তরফে এক হুমকি চিঠিতে বলা হয়েছে, উপত্যকার মানুষের স্বাধীনতা শেষ হয়ে গিয়েছে। এর বিরুদ্ধে জোরদার লড়াইয়ের প্রয়োজন। এলাকার যেসব মানুষ দোকান খোলা রাখছেন তারা মানুষের ভাবাবেগে আঘাত করছেন। এদের প্রতি আমাদের শেষ হুশিয়ারি, এরকম করলে এবার আর পায়ে গুলি নয়, সরাসরি মাথাতেই গুলি করা হবে। অন্যদিকে, হুঁশিয়ারি দিয়েছে লস্কর-ই-তৈবাও। এলাকার মানুষজনকে বলা হয়েছে, লস্করের সতর্কবার্তা মানা না হলে চরম মূল্য দিতে হবে। মনে করবেন না নীরব রয়েছি বলে আমরা দুর্বল। আমরা জানি কখন আঘাত হানতে হয়।

অন্যদিকে, ৩৭০ ধারা বাতিলের পর কাশ্মীরি মেয়ে বিয়ে করেছিলেন বিহারের সুপলের রামবিসনপুর গ্রামের বাসিন্দা সম্পর্কে দু’ভাই মহম্মদ তবরেজ ও মহম্মদ পারভেজ। কিন্তু এই বিয়েই তাঁদের জীবনে ডেকে আনল চরম বিপদ। অপহরণের অভিযোগে কারবাসে যেতে হল পেশায় রাজমিস্ত্রী এই দুই ভাইকে। জানা গিয়েছে, কর্মসূত্রে কাশ্মীরে থাকার সময় কাশ্মীরের রামবানের বাসিন্দা একই পরিবারের দুই বোনকে বিয়ে করেছিলেন দু’ভাই মহম্মদ তবরেজ ও মহম্মদ পারভেজ। বিয়ের পরে সস্ত্রীক গ্রামে ফিরে আসেন তাঁরা। কিন্তু এই বিয়ে মেনে নেয়নি মেয়ে দু’টির পরিবার। বাড়ির মেয়েদের অপহরণের অভিযোগে দু’ভাইয়ের বিরুদ্ধে কাশ্মীরের নাগমা বানিহল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই দুই বোনের বাবা।

(শ্রেয়শ্রী)

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট