অনেক অন্ধকারেও আলো জ্বাললেন বিনায়ক

সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়

অনেক অন্ধকারেও আলো জ্বাললেন বিনায়ক । মেধায়, বুদ্ধিতে, যোগ্যতায় এই মধ্য-মেধার কালের ঘূর্ণাবর্তে ।

কাল যখন বোস্টনের অলিন্দে দাঁড়িয়েছিলেন নোবেল জয়ী বিনয়ী বিনায়ক, কি অসম্ভব ভাল লাগছিল বাঙালির ! সাউথ পয়েন্ট, প্রেসিডেন্সি, জে এন ইউ, হার্ভার্ট হয়ে এম আই টি-র   এক উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক । যাঁর বিচ্ছুরণে আলোকিত নোবেল জয়ের রেশ আলোক বর্ষ গতিতে বারে বারে আছড়ে পড়ছিল বাঙালির মননে ।

“আমরা পারি” – এই বোধ বিনায়ক ফিরিয়ে দিলেন আমাদের চেতনায় এমন একটা সময়ে যখন ‘সব হারিয়ে ফেলা’ বাঙালির মেধা ভীষণ ভাবে হামাগুড়ি দিতে ভালোবাসে  ক্ষমতার অলিন্দে । এমন একটা ‘সময়ে’ তিনি অনেক কিছু দিয়ে গেলেন যার নির্যাস আহরণের বার্তা যাবে নব প্রজন্মের কাছে ।

রোনাল্ড রস, সি ভি রমণ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, মাদার টেরেসা, অমর্ত সেন, মহঃ ইউনুসের আলো জ্বালানো স্মরণীতে নব পথিকৃৎ হলেন বিনায়ক ।  চালে চলনে বচনে এক আটপৌরে বাঙালির অদ্ভুত সাযুজ্যর  রিফ্লেক্সন আছে বিনায়কের । সত্তরের দশকে  মহানির্বাণ রোডে তার মনের ফ্রেমটা তৈরি  হয়েছিল । সেসময় পাশে থাকা বস্তির দারিদ্র তাঁকে ভাবিয়েছিল । বোস্টনের ঝাঁ চকচকে বাড়িতে  পাশে সহধর্মিণী এস্থার ডুফ্লোকে নিয়ে আজও  বিনয়ী বিনায়ক মনের না হারানো বারান্দায় সহজেই বিহার করেন । তাই কত অনায়াসে লিখতে পারেন ‘পুওর  ইকন্মিক্স’ এর মত গ্রন্থ ।

আমরা অনেক অনেক আলোক বর্ষ দূর থেকে বাঙালি হিসেবে তাঁর আলোর ছটা নিই । নেওয়ার চেষ্টা করি । হারিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি সেই অনতি দূরের হারিয়ে ফেলা অতীতে । তাঁর ফেলে যাওয়া শহর কলকাতায়, কলতলার ‘এক কাজের লোকে’র কল্লোলিনীতে ।

প্রণাম বিনায়ক ।

(লেখকের মতামত ব্যক্তিগত)

(shreyashree)

(Visited 13 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here