অন্য মেজাজে বিশ্বনাথ বসু

0
50

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: কর্ম কলকাতাতে হলেও তিনি বসিরহাটের ছেলে। ষষ্ঠীর মধ্যে লাইট-ক্যামেরা-একশনের পাঠ চুকিয়ে সপরিবারে তিনি পাড়ি দেন বসিরহাটে।

আরবেলিয়া পুরাতন বসু বাটির ৪০০ বছরের পুরনো পুজো। পুজোর যাবতীয় কাজ নিজের হাতে সামাল দিতে পছন্দ করেন তিনি। আর সেটাই করেন বরাবর। আত্মীয়স্বজনকে ফোন করে তিনিই আমন্ত্রণ জানান প্রতি বছর। মূর্তি পুজো হয় বিশ্বনাথ বসুর দেশের বাড়িতে। মাকে দেওয়া হয় শুকনো ভোগ। আর বাড়ির ভিতরে পরিবারের সকলে আমিষ খান। সেখানে নিরামিষের বালাই নেই। পরিবারের সকলে মিলে অঞ্জলি থেকে শুরু করে সন্ধ্যারতিতে মেতে ওঠেন।

বিশ্বনাথ বসু একবার বলেছিলেন, “দেবিকার সঙ্গে প্রেম করাকালীন বলে দিয়েছিলাম সারাবছর আমাকে পাবে। পুজোর সময় আমাকে কলকাতায় পাবে না।” এমন একটা দুর্গাপুজোও আসেনি যেবার তিনি বসিরহাট যাননি। এবারও গিয়েছেন নিজের মুলুকে। পরিবারের সঙ্গে মেতে উঠেছেন উৎসবের আনন্দে। বিসর্জনের দিন মায়ের ঘট থাকে বিশ্বনাথের মাথাতেই। ৯ অক্টোবর সব মিটিয়ে কলকাতা ফিরছেন তিনি ও তার পরিবার।

sweta

(Visited 30 times, 1 visits today)