তান্ত্রিকের সঙ্গে স্ত্রী-র পরকীয়া, খুন স্বামী

দীর্ঘদিন ধরে চলছিল পরকীয়া, পথের কাঁটা সরাতে প্রেমিকার স্বামীকে খুন করল তান্ত্রিক

দক্ষিণ ২৪ পরগনা: তান্ত্রিকের বাড়ি থেকে মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বারুইপুর থানার বেদবেরিয়া রামকৃষ্ণ পল্লী এলাকায়। শুক্রবার গভীর রাত্রে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বারুইপুর থানার বেদবেরিয়া রামকৃষ্ণ পল্লী এলাকায় সত্যরঞ্জন হাওলাদার নামে এক তান্ত্রিকের বাড়ি থেকে কুদ্দুস সর্দার নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ পাওয়া যায়। তান্ত্রিকের ছেলে রাতে বাড়ি ফিরে মৃতদেহটি দেখে আশেপাশের লোকজনকে ডেকে এনে দেখায়। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে রাতে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। পুলিশ ও স্থানীয় মানুষের প্রাথমিক অনুমান তন্ত্র সাধনার জন্য খুন করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে।

তবে এর পাশাপাশি আরও একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা উঠে আসছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, নিহত ব্যক্তির স্ত্রীর সঙ্গে গোপন সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল ওই তান্ত্রিকের। নিহত ব্যক্তির স্ত্রী ওই তান্ত্রিকের বাড়িতে প্রায়ই আসত। ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটাত বলে স্থানীয় সূত্রে খবর। সকলের সন্দেহ পরকীয়া সম্পর্ক তৈরি হওয়াতেই ওই তান্ত্রিক কুদ্দুস সর্দারকে খুন করেছেন। জীবনতলা থানার বাঁশড়া গ্রামের বাসিন্দা নিহত কুদ্দুস সর্দার।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বহু বছর ধরে সত্য রঞ্জন হাওলাদার নামে ওই ব্যক্তি তন্ত্র সাধনা করেন। বেশিরভাগ সময় শ্মশানে ঘুরে বেড়ান। মাঝেসাজে বাড়ি আসেন। তখন সঙ্গে করে একটি করে মেয়েকে নিয়ে আসেন। পাড়ার লোক প্রতিবাদ করলে বলতেন মাতাজি এসেছেন। বিভিন্ন সময় বহু মানুষ জন ওই ব্যক্তির কাছে আসেন। তার কাজকর্ম আচার-আচরণে এলাকার মানুষ খুব একটা ভালো চোখে দেখত না। কারওর সঙ্গে কিছু হলে তুকতাক করার ভয় দেখাতেন। তান্ত্রিকের বাড়ির সামনের রাস্তায় দিয়ে লোকেরা যেতে ভয় পেত। এলাকায় থমথমে ভাব তৈরি হয়েছিল। এলাকার মানুষ তান্ত্রিককে দেখে ভয়ে ভয়ে থাকতেন বলে জানা গেছে।

মৃত ব্যক্তির পিছনের দিকে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। খুন করার পর নিজের ঘরেই কুদ্দুসের দেহ কাঁথা, বালিশ চাপা দিয়ে পালিয়ে যায় সত্যরঞ্জন। স্থানীয় মানুষের দাবি, পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে। এই ঘটনায় স্ত্রীও জড়িত রয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবি। বারুইপুর থানার পুলিশ প্রাথমিক তদন্তের পর একটি খুনের ঘটনা রুজু করেছেন। মৃতদেহটি ময়না তদন্তে পাঠান হচ্ছে। তবে পুলিশ কাউকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি। ঘটনার পর থেকে তান্ত্রিক সত্যরঞ্জন ও নিহতের স্ত্রী দুজনেই পলাতক।

(Visited 11 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here