কী এই ৩৫-এ ধারা? আসুন জেনে নেওয়া যাক

যুগশঙ্ঘ ডিজিটাল ডেস্ক: উপত্যকায় বিশেষ মর্যাদা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। সোমবার এ বিষয়ে নতুন বিলের প্রস্তাব দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এদিন রাজ্যসভায় সংশোধিত সংরক্ষণ কাশ্মীর বিল পেশ করেন। তাঁর বিবৃতি অনুযায়ী, এই বিলের প্রস্তাব মতো এখন থেকে থাকছে না জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা, কেড়ে নেওয়া হল। পাশাপাশি উপত্যকার ৩৭০ (৩) ধারা বাতিলেরও প্রস্তাব দিলেন তিনি। এক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতিকেও সুপারিশ করা হয়। একইসঙ্গে জানালেন, ৩৭০-এর সব ধারা আর প্রযোজ্য নয় কাশ্মীরে। তাঁর এহেন প্রতাবের পরেই ধুন্ধুমার কাণ্ড বেঁধে যায় সংসদে।

তবে এসবের মাঝেই আসুন জেনে নেওয়া যাক কী এই ৩৫-এ ধারা?

১৯৫৪ সালে রাষ্ট্রপতির নির্দেশে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এই ধারাটি। এই ধারায় জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দারা বিশেষ অধিকার দেওয়া হয়েছে। এই ধারা অনুযায়ী জম্মু ও কাশ্মীরের বিধানসভা স্থির করতে পারে রাজ্যের ‘স্থায়ী বাসিন্দা’ কারা এবং তাঁদের বিশেষ অধিকার কী হবে? কেবল স্থায়ী বাসিন্দারাই ওই রাজ্যে সম্পত্তির মালিকানা, সরকারি চাকরি বা স্থানীয় নির্বাচনে ভোট দেওয়ার অধিকার পান। রাজ্যের বাসিন্দা কোনও মহিলা রাজ্যের বাইরের কাউকে বিয়ে করলে সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত হন। তাঁর উত্তরাধিকারীদেরও সম্পত্তির উপরে অধিকার থাকে না।

(Visited 16 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here