বিভূতিভূষণ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুদিন

ঔপন্যাসিক বিভূতিভূষণ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুদিন

বিভূতিভূষণ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুদিন। ১৮৯৪ সালের ২৪ অক্টোবর বিহারের দ্বারভাঙ্গা জেলার মিথুলার পান্ডুল গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন বহুমুখী প্রতিভাযুক্ত একজন ব্যাক্তি। ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে দ্বারভাঙ্গা পীতাম্বরী বিদ্যালয় থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। তারপর ১৯১৬ খ্রিস্টাব্দে বি.এ. পাশ করে দ্বারভাঙায় চলে আসেন। তারপর কলকাতার রিপন কলেজ থেকে আই এ পাশ করেন এবং পাটনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি. এ. পাশ করেন। তিনি বাংলা সাহিত্যে জনপ্রিয় ঔপন্যাসিক ও ছোট গল্পকার হিসেবে পরিচিত। কিন্তু তাঁর কর্মক্ষত্র ছিল বৈচিত্রময়। অবশেষে ১৯৮৭ সালের ৩০ শে জুলাই বিহার জেলার দ্বারভাঙায় তিনি পরলোকগমন করেন।

ইংরেজি সংবাদ ইন্ডিয়ান নেশন পত্রিকার ম্যানেজার হয়ে কাজ করেছেন। তারপর ১৯১৬ থেকে ১৯৪২ পর্যন্ত শিক্ষকতা করেছেন। শিক্ষকতা চলাকালীন তিনি নিজেকে লেখার কাজে নিয়োজিত করলেও ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে চাকরি ছেড়ে সম্পূর্ণভাবে সাহিত্য সাধনায় নিয়োজিত হন। বিভূতিভূষণ একটি আত্মজীবনী মূলক উপন্যাসও লিখেছেন। নাম জীবনতীর্থ। তিনি বর্ধমান বিশবিদ্যালয় থেকে ডি. লিট উপাধি পান। এছাড়া অসংখ্য পুরস্কার পান যেমন-আনন্দ পুরস্কার, শরৎস্মৃতি পুরস্কার, রবীন্দ্র পুরস্কার। তাঁর সাহিত্য রচনায় দুটি ছদ্মনাম হল ব. ভ. ম ও কশ্চিৎ প্রৌঢ়। তাঁকে বাংলা ছোটগল্প জগতের শ্রদ্ধাচারী জ্ঞানতাপস বলা হয়।

তিনি অনেক কৌতুক ও রঙ্গরসের গল্পও লিখেছেন। মোট ২৬টি উপন্যাস, ৫০ টি গল্পগ্রন্থ এবং ‘কেন লিখি’ নামে ১টি মাত্র নিবন্ধ রচনা করেন। তাঁর প্রথম উপন্যাস ‘নীলাঙ্গুরীয়’। প্রথম গল্প ‘অবিচার’, যা প্রবাসী পত্রিকার আষাঢ় সংখ্যায় প্রকাশিত হয়ে সাহিত্যজগতে আত্মপ্রকাশ ঘটে। তাঁর কৌতুক গল্পের বই বরযাত্রীর ছয় বন্ধু গণশা, ঘোঁতনা, ত্রিলোচন, গোরাচাঁদ, রাজেন আর কে. গুপ্ত বাংলা, রানু সিরিজের গল্পগুলি রসসাহিত্যের পরিচিত চরিত্র। বিভূতিভূষণের প্রতীকী উপন্যাসের প্রথম সূচনা হয় ‘রিক্সার গান’ নামক উপন্যাসের মধ্যে দিয়ে। তাঁর শ্রেষ্ঠ গল্প হল ‘কুইট ইন্ডিয়া’। জীবনের রূঢ় কর্কশতার সত্য ও তাঁর গল্পগুলিতে ধরা পড়েছে। তাঁর রসরচনায় রয়েছে অসামান্য দক্ষতা।

(Visited 21 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here