Breaking NewsLead Newsপশ্চিমবঙ্গ

আচার্যকে এড়িয়ে তৃণমূলের ধর্নামঞ্চে উপাচার্যরা, বিতর্ক

এস. এ. হামিদ, কলকাতা: আচার্য জগদীপ ধনখড়ের ডাকে সাড়া দেননি সোমবার, কিন্তু মঙ্গলবার তৃণমূলের ছাত্র সংগঠন টিএমসিপির ধর্না মঞ্চে যোগ দিলেন উপাচার্যরা। সরকারি পদে থেকে একটি রাজনৈতিক দলের কর্মসূচিতে কীভাবে যোগ দিতে পারেন উপাচার্যরা- তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বিভিন্ন মহলে।

রানি রাসমণি অ্যাভিনিউতে টিএমসিপির ধর্না মঞ্চে যোগ দেন সিধু কানহু বিশ্ববিদ্যালয়, উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ও পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। সঙ্গে ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। মঙ্গলবার রাজ্যের ৩ উপাচার্যদের এহেন আচরণকে ‘স্বাধিকারের’ পক্ষে ভালো না বলে আখ্যায়িত করেছেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গনজ্ঞাপন বিভাগের অধ্যাপক সায়ন্তন চট্টোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন: এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে কলকাতা পুরসভা ভোট

এদিন সায়ন্তন বাবুর জানান, ‘এর আগেও এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে এরাজ্যে। ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে অভিজিৎ চক্রবর্তী উপস্থিত থাকায় পরে তিনি যাদবপুরের উপাচার্যের পদ উপহার হিসাবে পান।’ সেইসাথে তিনি বলেন, ‘একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের যে স্বাধিকারের ব্যাপার থাকে, তার জন্য এই ধরনের ঘটনা কাম্য নয়।’

উল্লেখ্য, পড়াশুনার মান ও রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্রের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনার জন্যে আলোচনায় বসতে আলোচনায় বসতে চেয়েছিলেন আচার্য তথা রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। সোমবার, নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও এক জন উপাচার্যও বৈঠকে যোগ দিতে আসেননি। যা নিয়ে রীতি মতো ক্ষুব্ধ হন রাজ্যপাল।

আরও পড়ুন: কেটে যাওয়া হাত জুড়ে দিলেন চিকিৎসকেরা, নজিরবিহীন ঘটনা এসএসকেএম-এ

কারণ হিসাবে জানা যায়- সম্প্রতি রাজ্য এবং রাজ্যপাল সংঘাতের আবহে আচার্যের ক্ষমতা নিয়ে নতুন বিধি পাশ হয়েছে বিধানসভায়। শিক্ষা দফতরের এক আধিকারিক জানান, উপাচার্যদের বৈঠকে ডাকতে হলে, তা উচ্চ শিক্ষা দফতর মারফত করতে হবে। উচ্চ শিক্ষা দফতরকে এড়িয়ে করা যাবে না। আচার্য যে বৈঠক ডেকেছিলেন, তা শিক্ষা দফতরকে এড়িয়ে যাওয়ায় উপাচার্যরা বৈঠকে যোগ দেননি বলে মত ওই আধিকারিকের।

(Visited 21 times, 1 visits today)

Related Articles

Back to top button
Close
Close