সংবিধানের কপি ছিঁড়ে ফেললেন পিডিপির দুই সাংসদ, রাজ্যসভা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার নির্দেশ বেঙ্কাইয়া নায়ডুর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 5, 2019 | 3:19 pm

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার ঘোষণার পরই উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্যসভা। এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সংসদের মেঝেতেই ধর্নায় বসেন কংগ্রেস, পিডিপি, তৃণমূল এবং ডিএমকে-র সাংসদরা। এরই মধ্যে বিলের বিরোধিতা করে সংবিধানের কপি ছিঁড়ে ফেলে পিপিডি -র দুই সাংসদ মির ফায়াজ ও নাজির আহমেদ লাওয়ে। বাধ্য হয়ে সভাকক্ষে মার্শাল ডাকেন বেঙ্কাইয়া নাইডু ৷ তারপর ওই দুই সাংসদকে রাজ্যসভা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। জানা গিয়েছে, এই দুই রাজ্যসভার সাংসদের বহিষ্কার নিয়ে পরে একটি বৈঠক ডেকেছেন নাইডু৷

আজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রাজ্যসভায় জম্মু ও কাশ্মীর সংরক্ষণ (সংশোধনী) বিল পেশ করতে গিয়ে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার প্রস্তাব রাখেন৷ বিলটি রাজ্যসভায় পেশ করার সঙ্গে সঙ্গেই রাজ্যসভা জুড়ে তুমুল বিক্ষোভ দেখায় বিরোধীরা। এরই মাঝে জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিলটি পেশ করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ এতে লাদাখ ও জম্মু-কাশ্মীরকে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার কথা বলা হয়েছে।

কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ যখন এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করছিলেন তখন তাঁকে থামিয়ে দিয়ে অমিত শাহ বলেন, “১৯৫২ ও ১৯৬২ সালে কংগ্রেস একই পদ্ধতিতে ৩৭০ ধারার সংশোধন করেছিল। অতএব বিরোধিতা না করে আমাকে বলতে দিন।”

কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস, পিডিপি, ডিএমকে, সমাজবাদী পার্টি, জেডি (ইউ) এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করলেও কেন্দ্রের এই প্রস্তাবে সহমত পোষণ করেছে বহুজন সমাজ পার্টি, বিজু জনতা দল, ওয়াইএসআর কংগ্রেস, তেলঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি, এআইএডিএমকে ও আম আদমি পার্টি। প্রধানমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অরুণ জেটলি। তিনি বলেন, “একটা ঐতিহাসিক ভুলের সংশোধন হল। সংবিধানের ৩৬৮ ধারাকে না মেনে পিছন দরজা দিয়ে ৩৫এ ধারাকে আনা হয়েছিল।”

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট