‘উপজাতি গবেষণা কেন্দ্র’ সমগ্র উত্তর-পূর্ব রাজ্যের কাছে একটি সম্পদ: মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: “উত্তর পূর্ব অঞ্চলের উপজাতি সমাজের পরিবর্তনশীল গতি” শীর্ষক দুই দিনের জাতীয় সেমিনারের উদ্বোধন করলেন মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড কে সাংমা। শিলং কলেজে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

উদ্বোধনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কনরাড কে সাংমা বলেন, উপজাতি সমাজের পাশে থাকার জন্য মানুষকে আরও এগিয়ে আসতে হবে। সমাজে তাঁদের উন্নয়ন ও বিকাশের জন্য এই ধরনের জন্য সেমিনার, গবেষণা ও কর্মসূচীর অনেক প্রয়োজন আছে। পাশাপাশি তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জেলা পরিষদগুলি আমাদের পরিচয় এবং সংস্কৃতির রক্ষাকারী। তবে তারা আমাদের উপজাতির পরিচয় সম্পর্কে তেমন তথ্য বা তথ্য সরবরাহ করে না।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, বাবদমের চিদেকগ্রেতে উপজাতি গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। যা কেবলমাত্র মেঘালয়ের উপজাতি নয় সমগ্র গোটা উত্তর-পূর্বের মানুষ একটি অত্যাধুনিক প্রতিষ্ঠান পাবে। উপজাতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অর্থের দ্বারা এই ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হচ্ছে।

পরিবর্তনের সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমরা যেমন এগিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু আমাদের উন্নয়ন এবং আমাদের পরিচয় এবং শিকড়গুলির মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা দরকার।  পাশাপাশি বক্তব্য রাখতে গিয়ে দিল্লি স্কুল অফ ইকোনমিক্স এবং টাটা ইনস্টিটিউট অফ সোশ্যাল সায়েন্সেস প্রাক্তন অধ্যাপক ভার্জিনিয়াস জ্যাক্সা  বলেন যে “উপজাতি” শব্দটি এখনও অগ্রহণযোগ্য এবং অসম্মানিত। বিশ্বের অনেক জায়গায় ‘আদিবাসী’  বলা হয়ে থাকে। পাশাপাশি তিনি সমাজে উপজাতি সমাজের উন্নয়নের গতিবিধিকে তুলে ধরেন।

bipasha

 

 

 

(Visited 23 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here