চোর ধরতে ডাক পড়ল গুণিনের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | July 10, 2019 | 6:55 pm

গহনা চোর ধরতে বাড়িতে দুদিন ধরে পুজো- যজ্ঞ, খবর পেয়ে ভেস্তে দিল পুলিশ 

বেলদা: চোর ধরতে ডাক পড়ল গুণিনের। পাড়ার মোড়লদের পরামর্শে গুণিন দিয়ে দুদিন ধরে চলছিল পুজা -যজ্ঞ। কুসংস্কারের বসে অস্বাভাবিক কিছু হতে চলেছে দেখে খবর চলে যায় পুলিশে। পুলিশ এসে বন্ধ করল সব। পরিবারের লোকজনকে বোঝান এসডিপিও। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই ফেরার গুণিন। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের বুধবার বেলদা থানার বড়মাৎকতপুর গ্রামে।

বুধবার  গ্রামের বাসিন্দা মুকুল মাইতির বাড়িতে চলছিল গুণিন ডেকে পুজো ও যজ্ঞ। স্থানীয় সূত্রে খবর মঙ্গলবারও পুজো হয়েছে। পুজো কীসের ? খোঁজ নিয়ে জানা যায়- সেটি আসলে চোর ধরার জন্য। মুকুল মাইতির স্ত্রীর সোনার গয়না চুরি যায় কয়েকদিন আগে। তবে চোরের বা গহনার খোঁজ পাচ্ছিলেন না তারা।তাই পাড়ার মোড়লদের পরামর্শে পুলিশের থেকে গুণিনকে ভরোসা করেছিলেন চুরি যাওয়া জিনিস উদ্ধারে। গুনিরের সঙ্গে কথা বলে তারা জানতে পারে পুজো-যজ্ঞ করে ‘কাঠিচালার’ মধ্য দিয়েই চোর ধরা পড়বে। পুলিশ প্রশাসনে না জানিয়ে গুণিন ডেকে চোর ধরতে সেই মতোই চলছিল প্রক্রিয়া।  একবিংশ শতাব্দীতেও মধ্যযুগীয় কুসংস্কার ও বুজরুকিতে মেতে যায় গোটা গ্রাম। পুজো দেখতে জমতে থাকে মানুষের ভিড়। সেখান থেকেই জানতে পেরে হাজির হয়ে যায় পুলিশ।বেলদা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সুমনকান্তি ঘোষ ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামের লোকজনকে বোঝান। এটা যে বুজরুকি তাও বোঝান তাদের।  বড়মাৎকতপুর  প্রাথমিক বিদ্যালয় ও জুনিয়র হাইস্কুলের পড়ুয়াদের নিয়ে সচেতন করেন তিনি। সেই সঙ্গে ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এসডিপিও বলেন- এলাকার মানুষজনের পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে এই কুসংস্কারের বিরুদ্ধে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করেছি। সেই গুনিনের খোঁজ চালাচ্ছি, তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে।

 

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *