ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সুন্দরবনে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী রাস উৎসব বন্ধ

যুগশঙ্খ প্রতিবেদন, ঢাকা : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বাংলাদেশ উপকূলের ৫০০ কিলোমিটারের মধ্যে পৌঁছে যাওয়ায় মোংলা ও পায়রায় ৭ নম্বর এবং চট্টগ্রাম বন্দরে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত জারি হয়েছে।

এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের বাগেরহাটে বৃষ্টির তীব্রতা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বুলবুলের প্রভাবে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী রাস উৎসব বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

সেই সঙ্গে সুন্দরবনের দুবলা শুটকি পল্লীর ১৫ হাজার জেলেসহ সুন্দরবনের অবস্থানরত পর্যটকদের ফিরিয়ে আনতে কাজ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুক্রবার দুপুরে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলার ২৩৪টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র, ১০টি মেডিকেল টিম, ১০টি কন্ট্রোল রুম ও জেলার সব সরকারি আধিকারিক-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

এছাড়াও সভায় রেড ক্রিসেন্ট, ফায়ার সার্ভিস ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার কয়েক শত স্বেচ্ছাসেবকদের প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. কামরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী আধিকারিকসহ সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন।

ঘূর্ণিঝড়ের আগাম প্রস্তুতি হিসেবে সুন্দরবনের দেশি-বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পাশাপাশি বনের ভ্রমণে থাকা পর্যটকটের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু হয়েছে। একই সঙ্গে সুন্দরবনে দুবলারচরে শুঁটকি পল্লীতে অবস্থারত ১৫ হাজার জেলেকে ফিরিয়ে আনতে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসন কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করছে।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে রাস পূর্ণিমাকে সামনে রেখে ১০ নভেম্বর থেকে সুন্দরবনের আলোরকোলে শুরু হতে যাওয়া ৩ দিনব্যাপী রাস উৎসব বন্ধ ঘোষণা কর্তৃপক্ষ। সুন্দরবন বিভাগের সব কর্মকর্তা ও বনরক্ষীদের নিরাপদ থেকে বণ্যপ্রাণি রক্ষায় কাজ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

(Visited 52 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here