অযোধ্যায় জঙ্গি হামলার আশঙ্কা, রাজ্যে ৩০টি বম্ব স্কোয়াড মোতায়েন

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: কয়েকদিনের মধ্যেই অযোধ্যা মামলার রায়দান। তবে এরই মাঝে অযোধ্যায় সন্ত্রাসী হামলা হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিল। গোপন সূত্রে এমনই খবর পেয়েছে গোয়েন্দারা। ফলে কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হল অযোধ্যাকে। বড়সড় হামলা এড়াতে সেখানে মোতায়েন করা হল ৩০টি বম্ব স্কোয়াড।

জানা গিয়েছে, ১৭ নভেম্বর শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের অবসর গ্রহণের আগে রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ মামলার রায়দান হবে বলে আশা করা হচ্ছে। সূত্রের খবর, ১২ নভেম্বরের আগে সব ধর্মশালা খালি করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা ছাড়া বাকি সবাইকে শহর ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ১০ নভেম্বরের মধ্যে অযোধ্যার নিরাপত্তার দায়িত্ব হাতে তুলে নেবে অন্তত ৩০০ কোম্পানি নিরাপত্তা কর্মী। এদের মধ্যে অর্ধেক কেন্দ্রের ও অর্ধেক রাজ্যের বাহিনী থাকবে। বিতর্কিত স্থানের নিকটবর্তী রাম কোট এলাকায় সব রাস্তা সিল করে দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

এর আগে, অযোধ্যায় প্রায় ৪ হাজার আধাসামরিক বাহিনীর জওয়ান পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিটি রাজ্যের সরকারকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে বিশেষ অ্যাডভাইজারি পাঠানো হয়েছে। গত অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে অযোধ্যা জেলায় ১৪৪ ধারা জারি আছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই শহরে কার্ফু জারি থাকবে। বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বার্ষিকীর চারদিন পর পর্যন্ত কার্ফু জারি থাকবে। অযোধ্যার পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশ জুড়ে কড়া নিরাপত্তার বন্দোবস্ত করা হয়েছে। পাশাপাশি মুজাফফর নগরের পাশাপাশি গোরক্ষপুর, কানপুর এবং ফৈজাবাদের মতো এলাকায় ইতোমধ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা টহল দিচ্ছেন। সেইসঙ্গে সংবেদনশীল এলাকাগুলিতে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

এদিকে, অযোধ্যার রায়দানের আগে গোয়ায় ১৪৪ ধারা জারি করা হল। আগামী ৩০ দিন ৫ জনের বেশি মানুষের জমায়েত, স্লোগান দেওয়া ও লাউডস্পিকারের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

sweta

(Visited 14 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here