টালিগঞ্জ: পুলিশ নিগ্রহ কাণ্ডে ধৃত ২, ঘটনার ৩০ ঘন্টা পরে গ্রেফতার, উঠছে প্রশ্ন

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: টালিগঞ্জ থানার মধ্যে ঢুকে পুলিশ নিগ্রহের ঘটনায় দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতদের নাম দীপন অধিকারী ও ছোটন দাস। রবিবার রাতে পুলিশ নিগ্রহের ঘটনা ঘটে। ঘটনার ৩০ ঘন্টা পার হয়ে যাওয়ার পরে দুই অভিযুক্তকে পুলিশ গ্রেফতার করে। অপরাধীদের ধরতে পুলিশের এত সময় লাগলো কিভাবে তাই নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সোমবার রাতে পুলিশ স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করে কেস রুজু করে। আজ ধৃতদের আদালতে তোলা হবে।
ঘটনার সূত্রপাত রবিবার রাতে মেনকা সিনেমা হলের সামনে থেকে মদ্যপ অবস্থায় ৪ জনকে অভব্য আচরণ করতে দেখে পুলিশ তাদের পাকড়াও করে। সেই সময়ে পুলিশ তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আর একজন পালিয়ে যায়। থানায় নিয়ে আসার কিছুক্ষণ পরে ওই তিনজনের বিরুদ্ধে পেটি কেস রুজু্ করে তাদের জামিন দিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু তারপরেই সেই রাতে পুলিশ কেন তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে এল সেই অভিযোগ তুলে থানার মধ্যেই কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারকে নিগ্রহ করা হয়। থানার মধ্যে সেই সময় ছিলেন সাব ইন্সপেক্টর ও অফিসার ইনচার্জ। সাব ইন্সপেক্টরের জামার কলার ধরে টানাটানি করা হয়। পাশাপাশি লেডি অফিসারদেরও হেনস্থা করা হয়। এই সময়ে একদল যখন থানার মধ্যে ঢুকে তাণ্ডব চালাচ্ছিল, তখন তাদেরই দলের কয়েকজন থানার গেটের সামনে অপেক্ষা করছিল। সেই সময়ে থানার সামনে মাথায় টুপি পরা অবস্থায় আসছিলেন একজন পুলিশ কনস্টেবল। তাকে দেখে “পুলিশ” অনুমান করে নিয়েই তাঁর ওপরেও চড়াও হয় ওই দলবল।
কিন্তু এত উন্মত্ত আচরণ ঘটানোর পরে ওই দলবল থানা থেকে বেরিয়ে চলে যায়। সেই মুহূর্তে পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের আটক বা গ্রেফতার করা হয়নি।
ঘটনার ১১ ঘন্টা পরে পুলিশ স্বতঃপ্রণোদিত মামলা রুজু করে। আর ঘটনার ৩০ ঘন্টা পরে দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
থানার মধ্যে ঢুকে পুলিশ অফিসারদের ওপর তাণ্ডব চালানোর সাহস তারা কিভাবে পেল, তাণ্ডব চালানোর পরে সেই সময়ে তাদের গ্রেফতার না করে, ঘটনা ঘটার ৩০ ঘন্টা পার হয়ে যাওয়ার পর তাদের গ্রেফতার করা হল কেন? সেই নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বিভিন্ন মহলে।

(Visited 7 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here