Exclusiveব্লগ

অপরাধমূলক কাজে মুসলিমরাই বেশি এগিয়ে, রিপোর্ট বেসরকারি সমীক্ষায়, ভিন্নমত বিশিষ্টজনেদের

শংকর দত্ত

অপরাধ প্রবণতায় মুসুলমানরাই গোটা দেশে এগিয়ে। এমনই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায়। দেশের এক মানবাধিকার সংস্থা ও অন্য আর একটি বৃহৎ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার রিপোর্ট প্রকাশ করে জানিয়েছে মুসলিমরাই এখন গোটা দেশের অপরাধমূলক কাজে এগিয়ে।  গোটা দেশে মোট ১২ হাজার পুলিশ অফিসার ও পুলিশ কর্মীর মতামতের ভিত্তিতে ১৮৮ পাতার এই রিপোর্ট তৈরি করে মানবাধিকার সংস্থা ‘কমন কজ” ও দেশের নামী স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘সেন্টার ফর দ্য স্টাডি অফ ডেভেলপিং সোসাইটি’।

‘স্টাটাস অব পলিসিং ইন ইন্ডিয়া-২০১৯” শিরোনামে এই সমীক্ষা রিপোর্ট তৈরি করে এই দুই সংস্থা।শুধু পুলিশ কর্মীদের পেশাগত সুযোগ-সুবিধা নয়,তাদের সুবিধা-অসুবিধা এমনকি সামাজিক দৃষ্টিকোণ কেও ধরা হয় এই সমীক্ষায়। ‘লোকনীতি প্রোগ্রাম” নামে এই সমীক্ষায় পুলিশ অফিসার ও কর্মীদের কাজের পরিবেশ,অপরাধমূলক তদন্তে প্রভাব ফেলে এমন বিষয় নিয়ে দীর্ঘ মতামত নিয়ে পর্যবেক্ষণ করে তারা। আর তাতেই উঠে আসে এই তথ্য।

কারা কতটা অপরাধ প্রবন এই প্রশ্নের উত্তরেই ৫০ শতাংশের মত উঠে আসে এইভাবে রিপোর্টে।যদিও এই সমীক্ষা রিপোর্ট নিয়ে বিশেষজ্ঞদের নানা অভিমত উঠে এসেছে। অনেকেই এই রিপোর্টকে মান্যতা দিতে অস্বীকার করেছেন। রবীন্দ্রভারতীর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার বলেন, “দেশের বহু সংস্থা নানা বিধ উদ্দেশ্য নিয়ে এই জাতীয় সমীক্ষা করে থাকে। তবে তার মানে তাদের সমীক্ষাই যে ধ্রুব সত্যি এটা মনে করবার কিছু নেই। তিনি জানান অনেক সময় সমাজকে বিভাজিত করতে সম্প্রীতি নষ্ট করতেও এই জাতীয় সমীক্ষা করে থাকে অনেকে। তাই সেটা কোনও মানদণ্ড নয়।”

প্রাক্তন সাংসদ, কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা আইনজীবী আমজাদ আলী খান জানান, “সমাজে মুসলিম সম্প্রদায়কে হেও প্রতিপন্ন করতে অনেকে এই জাতীয় রিপোর্ট প্রকাশ করে থাকে।যার কোনও ভিত্তি নেই। আসলে মূল সমস্যা নিয়ে কেউ কথা বলে না। এখনও শিক্ষা-দীক্ষা এবং সামাজিক উন্নয়নে বেশিরভাগ মুসলিম পিছিয়ে আছেন। এমনকি আর্থিক দিক থেকেও মুসলিমরা অনেক পিছিয়ে। সেই বিচারে এক শ্রেণীর মধ্যে হয়তো অপরাধ প্রবণতা তৈরি হচ্ছে আমরা দেখতে পাই। কিন্তু দেশ চলনার ক্ষেত্রেও মুসলিমরা আজ অগ্রণী ভূমিকায় আছেন।”

রাজ্য বিজেপির সহ সভানেত্রী মাফুজা খাতুন বলেন, “আমাদের রাজ্যে মুসলিমরা অনেক জায়গাতেই পিছিয়ে আছেন। অনেকেরই শিক্ষার মান কম। কিন্তু এখন মোদীজির নেতৃত্বে মুসলিমরাও এগিয়ে যাচ্ছেন অনেক বেশি। আমাদের পার্টি কোনও ভেদাভেদ করে না।তাই দেশে এমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার সম্ভাবনাই নেই। তিনিও বলেন,এইসব সমীক্ষা সব সময় সঠিক হয় না। কেন্দ্রের বিজেপি সরকার হিন্দুদের মতোই মুদলিম সম্প্রদায়ের উন্নতিতে সচেষ্ট।”

যদিও সমীক্ষায় প্রায় ৩৬ শতাংশ পুলিশের লোকজনই জানিয়েছেন হ্যাঁ মুসলিমরা অপরাধপ্রবণ। অন্যদিকে এই বিভাগের ১৪ শতাংশ মানুষ মনে করেন মুসলিমরা খুব বেশিই অপরাধ প্রবন। যদিও এই ৩৬+১৪ শতাংশের মধ্যে ২৫ শতাংশ মনে করছেন মুসলিমদের এভাবে অপরাধপ্রবণ বলে তারা মনে করেন না। আর ১৭ শতাংশ জানান, মুসলিমদের কোনোভাবেই তারা অপরাধপ্রবণ ভাবছেন না।

sa.hamid

(Visited 12 times, 1 visits today)

Related Articles

3 Comments

  1. ৩৬+১২=৪৮ জনের মধ্যে ২৫ জনই মুসলিমদের অপরাধ প্রবণ ভাবছেন না। সেক্ষেত্রে রিপোর্টের শিরোনাম কি দিলেন দাদা। আসলে মিডিয়া থেকে শুরু করে মূর্খ গ্রামবাসী পর্যন্ত একটা বড় অংশ আছে ভারতে; যারা মারাত্মক বর্ণবাদী। ধর্মীয় সহিংসতা এতো ভাল লাগে আপনাদের?

  2. ৩৬+১৪=৫০ জনের মধ্যে ২৫ জনই মুসলিমদের অপরাধ প্রবণ ভাবছেন না। সেক্ষেত্রে রিপোর্টের শিরোনাম কি দিলেন দাদা। আসলে মিডিয়া থেকে শুরু করে মূর্খ গ্রামবাসী পর্যন্ত একটা বড় অংশ আছে ভারতে; যারা মারাত্মক বর্ণবাদী। ধর্মীয় সহিংসতা এতো ভাল লাগে আপনাদের?

    আর অপরাধ কি ধর্মের ভিত্তিতে গণ্য হয় ভারতে?

    কী ফানি!

    একদিকে চন্দ্রবিজয়, অন্যদিকে বর্ণবাদ।

    আসলে চাঁদের অপর পিঠে ভয়ংকর অন্ধকার।

  3. Gota bissher manusher Mante osubidhe hoi na thiki ,

    j hetu amra bharat basi tai amra eta Mani j oporadh / sontrash mulok karjjo kolap jara kore berai tader kono jat hoi na.

Back to top button
Close
Close