ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার মালদা ও বসিরহাটে   

প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণের অভিযোগে ২০ বছরের জেল যুবকের, বসিরহাটে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

একই দিনে রাজ্যের দুই জায়গায় ধর্ষণের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল। একদিকে যখন এক প্রতিবন্ধী যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা চলছে ঠিক তখনই অন্যদিকে এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল খোদ জামাইবাবুর ভাইয়ের বিরুদ্ধে। প্রতিবন্ধী যুবতীকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত যুবককে ২০ বছরের জেলের ঘোষণা করল মালদা কোর্টের অ্যাডিশনাল ডিস্ট্রিক্ট অ্যান্ড সেশন জজ ভবানী শঙ্কর শর্মা। বুধবার দুপুরে অভিযুক্ত আসামীকে ২০ বছরের জেল এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে আদালত। সাজাপ্রাপ্ত যুবকের নাম মানিক মণ্ডল।

বাড়ি মালদা হবিবপুর থানার দক্ষিণ চাঁদপুর এলাকায়। সরকারি আইনজীবী অমল কুমার দাস বলেন, ‘২০১৬ সালের ২১ মার্চ মালদা হবিবপুর থানার দক্ষিণ চাঁদপুরের যুবক মানিক মণ্ডল এলাকারই এক প্রতিবন্ধী যুবতীকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ছিল। ঘটনার পর ওই যুবতী সাত দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন হাসপাতালে। যুবতীর পরিবারের পক্ষ থেকে মালদা হবিপুর থানায় ধর্ষণের লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগের ভিত্তিতে মালদা হবিবপুর থানার পুলিশ বিপুল সরকার ৩৭৬/(২)(১)এম মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করে ১১ জন সাক্ষী হাজির করেন। বুধবার ১১ জনের সাক্ষীর কথা শোনার পর এই রায় ঘোষণা করে আদালত। অভিযুক্তের ২০ বছরের জেল এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৪ বছরে জেলের ঘোষণা করা হয় এদিন।’

অন্যদিকে, এক দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল জামাইবাবুর ভাইয়ের বিরুদ্ধে। ঘটনার জেরে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বসিরহাট মহকুমার হাড়োয়ার ঘটনা। ছাত্রীটি হাড়োয়া পিজি হাই স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। বয়স ১২ ১৮। অভিযোগ, এই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে তাঁর জামাইবাবু জামির মোল্লার ছোটো ভাই। ওই যুবক ও যুবতীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে প্রেম প্রণয় চলছিল বলে জানা যায়। যুবতীর পূর্ব পরিচিত ওই যুবক বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সহবাস করতে থাকে। ওই যুবতি বিয়ের কথা বলাতেই বিয়ে করতে অস্বীকার করে ওই যুবক। তারপর ওই যুবকের বিরুদ্ধে হাড়োয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রীর বাবা।

পেশায় গাড়ি চলক টিংকু মোল্লা বয়স ২৫। বাড়ি হাড়োয়া আটঘড়া গ্রামের গোলদার পাড়ায়। ৭ বছর সর্ম্পক রয়েছে দু’জনের মধ্যে। বুধবার বাড়ির পাশে আমবাগানের পল্ট্রি ফার্মে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ওই যুবতীর। সে জানায়, গত ৭ বছর ধরে মেলামেশা চলে তারপর বিয়ে করার কথা বলতে গেলে নানান ধরনের হুমকি এবং খুনের হুমকিও দেয় টিঙ্কু মোল্লা। ওই ছাত্রীটি দেগঙ্গা থানার জামালপুরের বাসিন্দা। যুবতী এবং তাঁর পিতা জামান শিকারি হাড়োয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযুক্ত টিঙ্কু মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে হাড়োয়া থানার পুলিশ। ধৃত যুবককে আজ বৃহস্পতিবার বসিরহাট মহকুমা আদালতে তোলা হয়েছে।

(Visited 2 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here