কন্ডোম ব্যবহার করছেন? এর সঠিক নিয়মগুলো মানছেন তো?

দোয়েল দত্ত: এখন পাশ্চাত্যের ধাঁচে এদেশেও অনেকটা জুড়ে আছে ফ্রি সেক্স। আর তার পাশাপাশি কন্ডোমের ব্যবহার হু হু করে বাড়ছে। কন্ডোম ব্যবহারের মূলত দুটি উদ্দেশ্য থাকে। এক, অযাচিত গর্ভধারণ আটকানো এবং দুই, আচমকা যে কোনও যৌনবাহিত রোগ (ডাক্তারি পরিভাষায় এসটিডি) এসে না পড়ে। তবে বেশিরভাগের মনে একটা ধারণা আছে কন্ডোম ব্যবহার করতে হয় যৌন সহবাসের সময়ে, এর চেয়ে বেশি আর কিছুই জানার দরকার নেই। তবে কন্ডোম ব্যবহার সম্পর্কে অনেকেই সঠিক নিয়ম না মানার সময়ে নানাবিধ ভুল করে ফেলেন। আর সেজন্যই এই গর্ভনিরোধক সঠিকভাবে কাজ করতেও পারে না। কাজেই কন্ডোম ব্যবহারের আগে কিছু বিষয় মাথায় রাখুন-

১) অনেকদিন ধরে কন্ডোম ফেলে রাখবেন না
কন্ডোম কেনার পরে অনেকদিন ধরে তা ব্যবহার না করে রেখে দেওয়ার পরে তার ব্যবহার মোটেও নিরাপদ নয়। আমেরিকাতে ইণ্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর সেক্সু্য়াল হেলথ সেন্টারের সহযোগী পরিচালক ও অধ্যাপক ডেবি হার্বনিক জানান, যদি কাউকে কখনও দেখেন মানিব্যাগে রাখা কন্ডোম বের করছেন, তাহলে সেটা ব্যবহার করবেন না। কেননা বাড়িতে বা দোকানে যে তাপমাত্রায় কন্ডোম থাকে সেটা নিরাপদ। কিন্তু মানিব্যাগে দীর্ঘদিন ধরে কন্ডোম রেখে দিলে তা বেশি তাপমাত্রায় থাকে, আবার তার উপর বেশি বেশি করে ঘষা লাগতেও থাকে। এর ফলে মানে ঘষা আর গরমে কন্ডোম তার কার্যকারিতা হারায়। ফলে সেই কন্ডোম ব্যবহারে অনেক
কিছুরই ঝুঁকি থেকে যায়।

২) যেসব কন্ডোমে বেশি জায়গা থাকে না
সাধারণত কন্ডোম তৈরির একটা মেক্যানিজম থাকে আর তা হল কন্ডোমের সামনের দিকটায় একটু বেশি জায়গা থাকে, যাতে পুরুষাঙ্গ থেকে বের হওয়া সিমেন সেখানে জমা হয়। কিন্তু কন্ডোম যদি আঁটোসাঁটো করে পরা হয়, তাহলে সহবাসের সময়ে কন্ডোম ফুটো হয়ে যেতে পারে বা ফেটেও যেতে পারে। ফলে সঠিক নিয়ম মেনে কন্ডোম পরুন। কন্ডোমের সামনের সরু প্রান্তটা চেপে ধরে তা পরা উচিত, এতে ভিতরে বাতাস আটকে থাকবে না এবং যথাযথ দৃঢ়ভাবে তা আটকে থাকবে শরীরের সঙ্গে।

৩) মাপ সম্পর্কে সচেতন থাকুন
সব কন্ডোমই যে সকলের জন্য ঠিক ঠিক মাপের হবে এমনটা মোটেও নয়। কেননা সকলের যৌনাঙ্গ তো আর একরকমের হয় না, কারও বড়, কারও ছোট। কাজেই কন্ডোম ব্যবহারের আগে খেয়াল রাখতে হবে যে মাপ ঠিকমতো লাগবে সেটা ব্যবহার করা। কেননা কন্ডোম বেশি ঢিলে হলে সহবাসের সময় তা খুলে গেলে আত্মবিশ্বাসের দফারফা। আর বেশি চেপে থাকলে ফুটো যে হয়, তা আগেই বলা
হয়েছে।

৪) দেরিতে পরলেও কিন্তু মুশকিল
সহবাসের সময়ে অনেককেই দেখা যায় গোড়াতে কন্ডোম ব্যবহার করেন না। একেবারে শেষে এসে কন্ডোম ব্যবহারই তাঁদের কাছে উচিত বলে মনে হয়। আর এই ভুলের জন্য কখন যে অযাচিত গর্ভসঞ্চার হয় কিংবা যৌনরোগের আশংকা বেড়ে যায়, তা অনেকেই বুঝতে পারেন না। আমেরিকাতে হওয়া একটি গবেষণা থেকে দেখা গেছে যেসব দম্পতি শারীরিক সম্পর্কের নিরাপত্তার জন্য কন্ডোম ব্যবহার ও পিল খাওয়া দুটোই করেন, তাদের মধ্যে ৪৫ শতাংশ পুরুষ মাত্র সঠিকভাবে কন্ডোম ব্যবহার করতে পারে। বাকিরা হয় তাড়াতাড়ি খোলে কিংবা দেরি করে পরে। কাজেই সম্পূর্ণ নিরাপত্তা পেতে গেলে সহবাসের শুরু থেকেই কন্ডোমের ব্যবহার করুন।

৫) মেয়াদ দেখে নিন
অন্য সব জিনিসের মতো কন্ডোমেরও নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে। তবে ব্র‌্যান্ড আনুসারে এক-একটির মেয়াদ এক-একরকম হয়। তবে মেয়াদ-এর মধ্যে থাকলেই যে কন্ডোম ঠিক এমন কোনও কথা নেই। কন্ডোমে লুব্রিকেন্টের অন্যতম একটি উপাদান স্পারমিসাইড ছাড়াও থাকে গরম বা ঠান্ডা অনুভূতি আনার উপাদান। এই কন্ডোমগুলি মেয়াদ-এর আগেই শেষ হতে পারে। তাই ব্যবহারের আগে ভালো করে দেখে নিন।

sweta

(Visited 203 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here