উপত্যকা থেকে রাষ্ট্রপতি শাসন প্রত্যাহার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: বৃহস্পতিবার থেকেই দুটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভাগ হয়ে গেল লাদাখ ও জম্মু-কাশ্মীর। সেইসঙ্গে জম্মু ও কাশ্মীর দ্বিখণ্ডিত হয়ে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পরই সেখান থেকে তুলে নেওয়া হল রাষ্ট্রপতি শাসন। সরকারিভাবে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ কথা জানানো হয়েছে।

৫ অগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপ করে সেখান থেকে বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্র। তারই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার থেকে উপত্যকা জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ এই দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হয়েছে। এরপরই বিবৃতি জারি করে রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ জম্মু ও কাশ্মীর থেকে রাষ্ট্রপতি শাসন তুলে নেওয়ার কথা জানান। বৃহস্পতিবার শপথ গ্রহণ করে জম্মু-কাশ্মীরের উপ রাজ্যপাল গিরিশচন্দ্র মুর্মু ও লাদাখের উপ রাজ্যপাল রাধা কৃষ্ণ মাথুর। এদিন মাথুরকে শপথবাক্য পাঠ করান জম্মু-কাশ্মীর হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি গীতা মিত্তল। জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা খারিজ করে দেওয়ার পাশাপাশি জম্মু-কাশ্মীর থেকে লাদাখকে আলাদা করে একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়।

২০১৭ সালে পিডিপি-র নেতৃত্বাধীন সরকার থেকে বিজেপি সমর্থন তুলে নেওয়ায় পদত্যাগ করেন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। এরপরই উপত্যকায় কেন্দ্রীয় শাসন জারি হয়। প্রথম ৬ মাস ছিল রাজ্যপালের শাসন। এরপর ৬ মাসের জন্য রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়। তবে সংসদের অনুমোদনে সেই মেয়াদ ক্রমেই বাড়ানো হয়। জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পরই শুরু হয় অশান্তি। শান্তি বজায় রাখতে বন্ধ করে দেওয়া হয় ইন্টারনেট পরিষেবা।

জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখ দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ হয়ে যাওয়ার পর ভারতে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের সংখ্যা ৯। একটি রাজ্য কমে যাওয়ায় আজ থেকেই ভারতের মানচিত্রে রাজ্যের সংখ্যা দাঁড়াল ২৮।

sweta

(Visited 44 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here