ছাত্রী মৃত্যুতে স্কুলে বিক্ষোভ অভিভাবক ও পরিবারের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও শিক্ষাকর্মীরা চুরির অপবাদ দিয়েছিল অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী প্রিয়া পুরকাইতকে। আর এই অপবাদ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে সে। এমনই অভিযোগ নিয়ে স্কুল চলাকালীন বারুইপুরের শিখরবালি ২ পঞ্চায়েতের দুর্গাপুরের তিলোত্তমা বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে হাজির হয়ে বিক্ষোভ দেখাল মৃত ছাত্রীর পরিবার ও অভিভাবকরা।

তাদের দাবি, অবিলম্বে স্কুলের সেই শিক্ষক, শিক্ষিকা ও  শিক্ষাকর্মীদের শাস্তি দিতে হবে। এই ঘটনার জেরে এলাকাজুড়ে উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে বারুইপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। ছাত্রীর বাবা দীপঙ্কর পুরকাইত মঙ্গলবার দুপুরেই স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষিকা, ও এক শিক্ষাকর্মীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ  দায়ের করেন। বারুইপুর থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

 

স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে খবর,  গত শুক্রবার সকালে দুর্গাপুরের চন্দনপুকুরে দুর্গাপুর তিলোত্তমা বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রি প্রিয়া পুরকাইত আত্মহত্যা করে। পুলিশ দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছিল। কিন্তু কি কারনে আত্মহত্যা তা বুঝে উঠতে পারেনি ছাত্রীর পরিবার। এদিকে মঙ্গলবার সকালে স্কুলে যান প্রিয়ার মা ও পরিবারের লোকজন সহ অন্য অভিভাবকরা। সেখানে গিয়ে প্রিয়ার সহপাঠীদের কাছে জানতে পারেন প্রিয়াকে চোর অপবাদ দিয়েছিল স্কুলের শিক্ষিক শিক্ষিকারা ও এক শিক্ষাকর্মী।

এই বিষয়ে প্রিয়ার মা সুলেখা পুরকাইত নিজেই জানান, বৃহস্পতিবার স্কুলের টিফিনের সময়ে ২ টাকা পড়ে ছিল ক্লাসে। তা তুলতে গিয়েছিল প্রিয়া। কিন্তু এর পর স্কুলে সকলের সামনে তাকে চোর বলে অপবাদ দেয় স্কুলের শিক্ষিক শিক্ষিকারা। এক শিক্ষাকর্মী তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার ভয়ও দেখিয়েছিল। আর তার জেরেই শুক্রবার আত্মহত্যা করে সে। যদিও স্কুলের তরফে জানান হয়, ওই  ছাত্রীকে চুরির কোনও কথাই বলা হয়নি। অভিযোগ মিথ্যা।

(Visited 7 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here