আতঙ্কে ভারতের প্রতি যুদ্ধং দেহি মনোভাব পাকিস্তানের, কাশ্মীর সীমান্তে সেনা জমাচ্ছে পাক সরকার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 6, 2019 | 5:57 pm

মনোজ রায়: খাদ্য নেই, টাকা নেই, অথচ কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল হতেই ভারতের প্রতি রীতিমতো যুদ্ধং দেহি মনোভাব পাকিস্তানের৷ তড়িঘড়ি  আফগানিস্তান সীমান্ত থেকে সেনা সরিয়ে কাশ্মীরে নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর সেনা মোতায়েন করছে ইমরান সরকার বলে খবর৷ অপরদিকে তৎপর ভারতীয় সেনাও। ভারতীয় তরফে সাফ জানান হয়েছে, পাকিস্তান কোনও ধরনের আগ্রাসন চালালে উচিত শিক্ষা দেওয়া হবে৷

উল্লেখ্য, গতকাল গোটা দেশকে চমকে সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫এ ধারা কাশ্মীর থেকে বাতিল করে ভারত সরকার৷ গেজেটে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সই করেন। পাশাপাশি জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যটিকে ভেঙে দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার কথাও ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ এই মর্মে একটি বিলও পেশ করেন তিনি৷

বিরোধীদের হাজার প্রতিবাদেও রাজ্যসভায় পাশ হয়ে যায় জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল৷ তারপরই শুরু হয় তুমুল উত্তেজনা৷ বিরোধী দল ও কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা পাকিস্তানের সুরেই কেন্দ্রের সমালোচনায় সুর মেলায়৷ ক্ষোভ উগরে পাক বিদেশমন্ত্রী বলেন, “কাশ্মীর সমস্যা আবারও চাগিয়ে তুলতে চাইছে ভারত৷ এই ইস্যুতে রাষ্ট্রসংঘের দ্বারস্থ হতে চলেছে পাকিস্তান।”

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, পাকিস্তান আতঙ্কে রয়েছে যে জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হয়ে যাওয়ায় এবার পাক-অধিকৃত কাশ্মীর নিয়েও কড়া পদক্ষেপ নিতে পারে ভারত৷ তাছাড়া বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা না থাকায় হুরিয়ত, ন্যাশনাল কনফারেন্স বা পিডিপি-র মতো পাকিস্তান ঘেঁষা রাজনৈতিক দলগুলির মাধ্যমে কাশ্মীর উপত্যকার মানুষকে আর সন্ত্রাসবাদে উস্কে দিতে পারবে না পাকিস্তান।

সেনা সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই কাশ্মীরের সীমান্ত রেখা বরাবর সেনা মোতায়েন করা শুরু করেছে পাক সরকার৷ এদিকে গোয়েন্দা সূত্রে খবর পেয়েই কাশ্মীর উপত্যকায় হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে৷ যেকোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি ভারতীয় সেনাবাহিনীও৷ আইনশৃঙ্খলা ও কাশ্মীরীদের নিরাপত্তা রক্ষার স্বার্থে আগে থেকেই প্রায় ৩৫ হাজার আধাসেনা মোতায়েন করেছে ভারত৷

অন্যদিকে সোমবারই, বিদেশ সচিব বিজয় গোখলে আমেরিকা, রাশিয়া, চিন, ফ্রান্স, ব্রিটেন-সহ একাধিক দেশের প্রতিনিধির সঙ্গে দেখা করে আন্তর্জাতিক মঞ্চেও পাকিস্তানকে চেপে ফেলতে পদক্ষেপ নিতে পারে বলে জানা গিয়েছে। এছাড়াও কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত কোনও তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ যে মেনে নেবে না, তা আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে বুঝিয়ে দিয়েছিল কেন্দ্র৷

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট