আদালতে যাওয়ার পথে আক্রান্ত বধূ

আদালতে যাওয়ার পথে আক্রান্ত বধূ, অভিযোগের তির স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির দিকে

পূর্ব বর্ধমান: আদালতে বিবাহ বিচ্ছেদ ও খোরপোষের মামলা চলছে। সেই কারণেই এক বধূ কালনা আদালতে যাচ্ছিলেন মঙ্গলবার। সেইসময় যাওয়ার পথেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে রিয়া মণ্ডল নামে বধূর উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল কালনার লিচুতলা এলাকায়। এরপরেই রক্তাক্ত ও জখম অবস্থায় তাঁকে কালনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আক্রান্ত ওই বধূর বাড়ি মন্তেশ্বরের কাইগ্রাম এলাকায়। এই ঘটনার পরেই ওই বধূ তাঁর স্বামী ও শ্বশুরকেই দায়ী করেছেন। ওই বধূর আইনজীবী কালনা আদালতে মঙ্গলবারের এই ঘটনার বিস্তারিত জানান। আদালত ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় যে, আক্রান্ত ওই বধূর বাপের বাড়ি মন্তেশ্বর থানার কাইগ্রাম ব্রহ্মপুরে। শ্বশুরবাড়ি পাশের গ্রাম রাউৎগ্রামে। ওই বধূ জানায় যে, ২০১২ সালে বিয়ে হয় পাশের গ্রামের শ্রীমন্ত বন্ধুর সঙ্গে। বিয়ের পরেই তাঁর উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চালায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এরপরেই তিনি বধূ নির্যাতনের মামলা সহ খোরপোষের মামলা করেন। এই মামলা সংক্রান্ত বিষয় নিয়েই মঙ্গলবার তিনি বাস থেকে নামেন কালনা এসটিকেকে রোডের লিচুতলা এলাকায়। এরপরেই তিনি হাঁটা পথেই কালনা আদালতের দিকে যাচ্ছিলেন। আর সেই সময় পথে বেশ কয়েকজন তাঁর উপর হামলা চালায়। ধারালো অস্ত্র ও কোমরের বেল্ট দিয়ে মারধর করে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা করে বলে তাঁর অভিযোগ। এরপরেই রিয়ার মাথা দিয়ে রক্ত ঝড়তে থাকে। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই ঘটনার পরেই রিয়াদেবীর আইনজীবী অলোক ঘোষ বলেন, আদালতে এই ঘটনার কথা লিখিতভাবে জানান। তিনি জানান,‘বেশ কয়েকবছর ধরেই মামলা চলছে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে। এই কারণেই মক্কেলকে এইদিন প্রাণে মারার চেষ্টা হয়। বিচারককে সব ঘটনার কথা লিখিত ভাবে জানিয়েছি।’

(Visited 2 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here