কলকাতায় নবম বাংলাদেশ বইমেলা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:   শুক্রবার থেকে কলকাতার মোহরকুঞ্জে শুরু হতে চলেছে বাংলাদেশ বইমেলা। সেদেশে মেলার শুক্রবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন, এমপি। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কলকাতার মেয়র তথা নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরাদ হাকিম, বাংলাদেশ হাইকমিশনার(দিল্লি) সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, বিশিষ্ট বাঙালি কবি শঙ্খ ঘোষ ও বাংলা একাডেমীর সাবেক মহাপরিচালক তথা গবেষক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।

বাংলাদেশ উপদূতাবাসের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়গুলি জানিয়েছেন, উপদূতাবাস প্রধান তৌফিক হাসান, প্রেস সচিব মোফাকখারুল ইকবাল, প্রথম সচিব কমার্স শামসুল আরিফ এবং  জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ। মোহরকুঞ্জ প্রাঙ্গণে বইমেলা চলবে ১০ই নভেম্বর পর্যন্ত। স্থানীয় সময় দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। শনি ও রবিবার চলবে ৮.৩০ মিনিট পর্যন্ত।

[আরও পড়ুন: আগামী বছর পুজোর ছুটি বেড়ে ১৫ দিন]

৯ম’ বাংলাদেশ বইমেলার আয়োজক ‘বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি।’ সহযোগিতায় আছে ‘বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো’ ও মূল ব্যবস্থাপনায় আছে ‘কলকাতা বাংলাদেশ উপদূতাবাস।’ প্রতিবারের মত এবারও মেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সহায়তা থাকছে কলকাতার ‘ভাষা ও চেতনা সমিতি।’ থাকছে ৩০ হাজারের বেশি শিরোনামে ৭৭টি বেসরকারি ও দুটি সরকারি ( সরকারি বাংলা একাডেমী ও জাতীয় জাদুকর) এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর ট্রাস্ট সহ মোট ৮০টি বাংলাদেশের প্রকাশনা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, কলকাতা পুরসভার মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমার, বাংলাদেশ পুস্তক সমিতির সভাপতি আরিফ হোসেন, পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সম্পাদক, সুধাংশু দে ও বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ ও নির্বাহী পরিচালক মনিরুল হক।

সমাপ্তি অনুষ্ঠানে (১০ নভেম্বর) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ইতিহাসবিদ ড. মুনতাসীর মামুন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের একমঞ্চে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন বাংলাদেশের গায়িকা দিনাতজাহান মুন্নি ও শান্তিনিকেতনের মোহালি আদিবাসী নৃত্যশিল্পী সহ দুই বাংলার বিশিষ্ট শিল্পীরা।

কলকাতায় ‘বাংলাদেশ বইমেলা’র মুল উদ্দেশ্য শুধুমাত্র ব্যবসায়িক নয়, বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের মানুষের মধ্যে সেতুবন্ধন সৃষ্টি করা এবং পশ্চিমবঙ্গের মানুষ বাংলাদেশের লেখকদের বই সহজে এবং সুলভ মূল্যে কিনতে ও পড়তে পারে। পাশাপাশি বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীদের সাংস্কৃতিক পরিবেশনাও যেন উপভোগ করার সুযোগ পায় কলকাতাবাসী।

(shreyashree)

 

(Visited 13 times, 1 visits today)

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here