কাশ্মীর সমস্যা সমাধানের বদলে জটিলতর করে তুলছে বিজেপি সরকার: সেলিম

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 6, 2019 | 10:35 am

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজনৈতিক স্বার্থে সরকারি প্রচেষ্টায় কাশ্মীরকে অশান্ত করা হয়েছে। কাশ্মীর সমস্যা সমাধানের বদলে জটিলতর করে তুলছে বিজেপি সরকার। জম্মু কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল প্রসঙ্গে সোমবার মুজাফফর আহমেদের ১৩১ জন্ম দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সভায় এদাবিই করলেন সিপিআইএম পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলকে  জরুরি অবস্থার সাথে তুলনা করে তিনি বলেন, বিরোধী নেতাদের কন্ঠরোধ করে রাতারাতি যেমন জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছিল এক্ষেত্রেও কাশ্মীরের বিরোধী নেতাদের গৃহবন্দী করে হঠাৎই সংসদে ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়েছে।সেলিম জানান, এই সিদ্ধান্ত সংবিধান, গণতন্ত্রের ওপর হামলা। এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ বেআইনি। আমরা চেয়েছিলাম রাজনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে। কিন্তু মোদী সরকারের হঠকারী সিদ্ধান্তে কাশ্মীর আরও অশান্ত হবে।

অন্যদিকে জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা রদ করার কেন্দ্রীয় সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আগামী ৭ আগস্ট দেশজুড়ে প্রতিবাদ দিবস পালনের ডাক দিয়েছে সিপিএম। এদিনও দিল্লি, কলকাতা সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কেন্দ্রীয় সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মিছিল সংগঠিত করে সিপিএম। সিপিএম পলিটব্যুরোর তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ভারতের ভূখণ্ডে থাকা কাশ্মীরকে এতদিন পাকিস্তান বলত, ভারত অধিকৃত কাশ্মীর। ৩৭০ ধারা বিলোপের পর সিপিএমের পলিটব্যুরোর মত, ভারত রাষ্ট্র এমন একটা পরিস্থিতি তৈরি করল, তাতে মনে হচ্ছে জম্মু ও কাশ্মীরটা যেন একটা অধিকৃত অঞ্চল।

সিপিএম, সহ একাধিক বাম দলের মতে, সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা শুধু জাতীয় ঐক্যের উপর বিরাট আঘাত নয়, এটা ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর উপর সংগঠিত আক্রমণ। ভারতের বহুত্ববাদ সারা দুনিয়ায় স্বীকৃত। বিজেপি আর আরএসএস এই বহুত্ববাদকে সহ্য করতে পারছে না। সহ্য করতে পারছে না যুক্তরাষ্ট্রীয় ধারনাকেও। তারা জম্মু ও কাশ্মীরকে দখলিকৃত এলাকা বানাতে চাইছে। সংবিধানকে তছনছ করে তারা জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করেছে।সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি বলেন, “একটা বিশেষ পরিস্থিতিতে ৩৭০ ধারা সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করে জম্মু ও কাশ্মীরকে বিশেষ সাংবিধানিক মর্যাদা (স্পেশাল স্ট্যাটাস) দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনও আলোচনা ছাড়াই যে ভাবে সরকার বিল পাশ করিয়ে সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারাকে মুছে দিল।, তা থেকে স্পষ্ট দেশের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে নরেন্দ্র মোদীর সরকার।” তিনি আরও বলেন, “সংবিধান এবং ইতিহাসের মধ্যে একটা সেতুবন্ধন ছিল। আজ সেটাই ভেঙে দেওয়া হল।”

এদিকে কাশ্মীরে রাজনৈতিক নেতাদের গৃহবন্দি করার তীব্র নিন্দা করে রাখার বিরুদ্ধে সোমবার প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দেয় সিপিএম পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি।কাশ্মীরে রবিবার মধ্যরাত থেকেই সিপিআই(এম) নেতা মহম্মদ ইউসুফ তারিগামি, ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লা, পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি, পিপলস কনফারেন্স নেতা সাজ্জাদ লোনকে গৃহবন্দি করা হয়। শ্রীনগর সহ বিস্তীর্ণ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি এবং সমস্ত ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এরই প্রতিবাদে এদিন বিকাল ৪ টায় ধর্মতলা লেনিন মূর্তি থেকে মহাজাতি সদন পর্যন্ত এই প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেন বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র, মহ সেলিম সহ রাজ্য নেতৃবৃন্দ।

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট