বাঙালি সাহিত্যিক অমিয় চক্রবর্তীর মৃত্যুদিন

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | June 12, 2019 | 4:27 am

আজ অমিয় চক্রবর্তীর মৃত্যুদিন। ১৯৮৬ সালের ১২ জুন তিনি প্রয়াত হন। বাঙালি সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ ছিলেন তিনি। বিংশ শতাব্দীর বাংলা সাহিত্যের অন্যতম ব্যক্তিত্ব। বাংলা আধুনিক কবিতার ইতিহাসে তিরিশের দশক এবং বুদ্ধদেব বসু, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, জীবনানন্দ দাশ ও বিষ্ণু দে’র সঙ্গে কবি অমিয় চক্রবর্তীর নাম অবিনাশী বন্ধন ও সমসাময়িকতার বিস্ময়ে জড়িয়ে আছে। শীর্ষস্থানীয় আধুনিক কবি এবং সৃজনশীল গদ্যশিল্পী অমিয় চক্রবর্তী শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথের সাহিত্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

পৃথিবীর নানা মনীষার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে যোগাযোগ ছিল তাঁর এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল ১৯২৬ থেকে ১৯৩৩ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাহিত্য-সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ সময় তিনি শান্তিনিকেতনে থাকতেন। তাঁর কাজ ছিল, বিদেশী অতিথিদের পরিচর্য করা, ক্লাস নেওয়া, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নানা গ্রন্থ-তথ্য সংগ্রহরে দিয়ে সাহায্য করা, তাঁর বিদেশ যাত্রার সঙ্গী হওয়া ইত্যাদি।

শৈশবেই দৃঢ় ব্যক্তিত্ব নিয়ে গড়ে উঠেছিলেন অমিয় চক্রবর্তী। ফলে মাত্র পনের বৎসর বয়সেই রবীন্দ্রনাথকে চিঠি লিখে যোগাযোগ স্থাপন করেছিলেন। একইভাবে প্রমথ চৌধুরীর সঙ্গেও সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন। প্রথমে “ডাকঘর” ও পরে “ফাল্গুনী”-তে অভিনেতা রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে প্রথম দর্শন ঘটে। পরে প্রমথ চৌধুরীর বাড়িতে রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ হয়। তারপর কবির আহ্বানে তিনি শান্তিনিকেতনে যান। সেটি ১৯১৮ খিষ্টাব্দের কথা। সেখানেই রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ পরিচয়ের সূত্রপাত। শান্তিনিকেতনের সঙ্গে যোগাযোগ তাঁর জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

অমিয় চক্রবর্তী যে সব পত্র-পত্রিকায় কম-বেশি নিয়মিত লিখেছেন তার মধ্যে রয়েছে কবিতা, বিচিত্রা, উত্তরসূরী, কবি ও কবিতা, পরিচয়, প্রবাসী প্রভৃতি। এর মধ্যে এক “কবিতা” পত্রিকাতেই অমিয় চক্রবর্তীর বেশ ক’টি গদ্য রচনা প্রকাশিত হয়েছিল: ‘এজরা পাউন্ড : কবিতা’র দরবারে পত্রাঘাত’ (পৌষ ১৩৫৫), ‘এলিয়টের নতুন কবিতা’ (পৌষ ১৩৫০), ‘জয়েস প্রাসঙ্গিকী’ (কার্তিক, ১৩৪৮), ‘মার্কিন প্রবাসীর পত্র’ (পৌষ, ১৩৬০), ‘রবীন্দ্রনাথের দৃষ্টি’ (আশ্বিন, ১৩৪৮), ‘শেষের কবিতা’র লাবণ্য’ (আশ্বিন, ১৩৫৩) এবং ‘সমালোচকের জল্পনা’ (আশ্বিন, ১৩৫০)।, এছাড়া বুদ্ধদেব বসুর “নতুন পাতা” এবং সমর সেনের “গ্রহণ ও অন্যান্য কবিতা” গ্রন্থদ্বয়ের সমালোচনাও প্রকাশিত হয়েছিল (যথাক্রমে পৌষ ১৩৪৭ এবং কার্তিক ১৩৪৭ সংখ্যায়)। “কবিতা” পত্রিকায় চৈত্র ১৩৬২ সংখ্যায় বুদ্ধদেব বসুকে লেখা একটি খোলা চিঠি মুদ্রিত হয়েছিল ‘ছন্দ ও কবিতা’ এই শিরোনামে ।

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *