জম্মু ও কাশ্মীর থেকে আসা পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 7, 2019 | 1:45 pm

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্কঃ ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার পর জম্মু ও কাশ্মীরের নাগরিকদের বিশেষ করে পড়ুয়াদের নিরাপত্তার বিষয়টি সুনিশ্চিত করতে রাজ্যগুলিকে বার্তা দিয়েছে কেন্দ্র ৷ এই অবস্থায় জম্মু ও কাশ্মীর থেকে আসা  পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ।প্রতি বছরই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে চার-পাঁচজন পড়ুয়া আসেন কাশ্মীর থেকে । যদিও গত বছরের তুলনায় এই বছর বেশি কাশ্মীরি পড়ুয়া এসেছেন । প্রায় ১৮ জন ।তাঁদের প্রত্যেকেরই হস্টেলে থাকার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানাচ্ছেন রেজিস্ট্রার স্নেহমঞ্জু বসু।

সাধারণত, হস্টেল দেওয়ায় ক্ষেত্রে পড়ুয়াদের অর্থনৈতিক অবস্থা, দূরত্বের মতো বেশ কিছু মানদণ্ড রয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে।কিন্তু, বর্তমান পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে জম্মু ও কাশ্মীরের পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের হস্টেল কমিটি । বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, কাশ্মীরি পড়ুয়াদের হস্টেলে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে ।

রেজিস্ট্রার স্নেহমঞ্জু বসু বলেন, “আমাদের এখানে প্রতি বছরই কাশ্মীর থেকে ছাত্রছাত্রীরা আসে । বাইরের বিভিন্ন রাজ্য থেকে পড়ুয়ারা আসে। তাঁরা সাধারণত প্রাইম মিনিস্টার স্পেশাল স্কলারশিপ স্কিমের অধীনে ভরতি হয়। এই বছর স্নাতকে ১০ থেকে ১২ জন ভরতি হয়েছে। আর অনেকেই যাঁরা ভরতি হতে পারে না তাঁরা সেকেন্ড ইয়ারে ল্যাটারাল এন্ট্রি নিয়ে ভরতি হয়, সেখানে ৩ থেকে ৪  জন ভরতি হয়েছে। আমাদের তো বিদেশি পড়ুয়াদের জন্য আলাদা থাকার ব্যবস্থা আছে। সেখানে তাঁরা থাকে । কিন্তু, সেখানে যেহেতু লিমিটেড সিট তাই সবাই হয়ত সবসময় সিট পায় না । কখনও কখনও তাঁদের বাইরেও থাকতে হয়। কিন্তু, এখন যেহেতু একটা এমারজেন্সি সিচুয়েশন, টাকাপয়সার ব্যবস্থা তারা করতে পারছে না, মানি ট্রান্সফার করতে পারছে না ৷ সেই কারণে আমরা বিশেষভাবে নির্দেশিকা দিয়েছি, যাতে তাদের বিশেষভাবে প্রথম প্রায়োরিটি দিয়ে হস্টেলে নিয়ে নেওয়া হয় ।”

এর পাশাপাশি তিনি বলেন, “গতকাল দু’একজনকে ভরতি করা হয়েছে । সাধারণত সিট পাওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্যতাটা দেখা হয়, আর দূরত্ব তো আছে যেহেতু এরা বাইরে থেকে আসছে । কিন্তু এই বছর মূলত তাঁদের ক্ষেত্রে যেভাবেই হোক অ্যালটমেন্ট দিয়ে দিচ্ছি । যাতে ওদের কোনওরকম অসুবিধা না হয় টাকা পয়সার ব্যাপারে । এবার আমরা চেষ্টা করছি কাশ্মীরের ছাত্রদের সহানুভূতির সঙ্গে দেখতে ৷”স্বাভাবিকভাবেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানাচ্ছেন কাশ্মীর থেকে আসা পড়ুয়ারা ।

 

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট