ডায়াবেটিস মুক্তিতে অপ্রতিরোধ্য তেঁতুল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: তেঁতুল যেমন লোভনীয় স্বাদের একটি ফল, তেমনি এটা রোগ প্রতিরোধেও সমান কার্যকরী। আপনার নিশ্চয়ই ছবি দেখে জিভে জল চলে এসেছে? তেঁতুল এমনই এক ফল, যার নাম শুনলে সবারই জিভে জল চলে আসতে বাধ্য। তেঁতুল কাঁচা, পাকা, আচার কিংবা সস তৈরি করে বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। পাকা তেঁতুল সংরক্ষণ করে সারাবছর খাওয়া যায়।

কারণ এটি খেলে শরীরে একইসঙ্গে অনেকরকম উপকার মেলে। তেতুল ওবেসিটি কমিয়ে ঝরঝরে রাখে। এছাড়া হৃদস্পন্দন নিয়মিত রেখে হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনাও কমায়। প্রতিদিন পাতে একটু তেঁতুল মানেই রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকটাই বেড়ে যায়।

এছাড়াও ভিটামিন সি, ই, বি ছাড়াও তেঁতুলে পাবেন ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ আর ফাইবার। আর রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। সব মিলিয়ে তেতুল স্বাস্থ্যের জন্য মঙ্গল। আসুন জেনে নেয়া যাক তার কয়েকটি,

৥ তেঁতুলের গুণে লিভারের সমস্ত সমস্যা গায়েব। হজম হয় দ্রুত। ওজন ধরে ঝটপট।

৥ সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস কমায়। কার্বোহাইড্রেট তৈরি হতে দেয় না রক্তে। এটা এক প্রকার অপ্রতিরোধ্য ভাবে কাজ করে শরীরে। এর জন্য সকালে খালিপেটে তেঁতুলের রস খেতে পারেন সুগারের রোগীরা। কেন বয়স বাড়লে হাড় কমজোর হয়? দাঁত-হাড় মজবুত হবে কী খেলে?

৥ তেতুঁলের এর মধ্যে থাকা আয়রন আর পটাশিয়াম লোহিত রক্ত কণিকার পরিমাণ বাড়িয়ে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৥ তেঁতুলের এর মধ্যে থাকা হাইড্রোসিট্রিক অ্যাসিড শরীর থেকে ফ্যাট ঝরাতে সাহায্য করে।

৥ বিছে কামড়ানোর ব্যথা-জ্বালা কমায় তেঁতুলের রস।

৥ ক্যান্সার রোধে তেঁতুল অপ্রতিরোধ্য। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আর টার্টারিক অ্যাসিড প্রচুর রয়েছে। যা ক্যান্সারের কোষ বৃদ্ধিতে বাধা দেয়।

#Najmul

(Visited 122 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here