দলের কোপের মুখে বিধাননগর পুরনিগমের মেয়র সব্যসাচী দত্ত

কলকাতা: বকেয়া ডিএ-র দাবিতে বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীদের সঙ্গে বিদ্যুৎ ভবন অভিযানে গিয়ে দলের কোপের মুখে বিধাননগর পুরনিগমের মেয়র সব্যসাচী দত্ত। রবিবার তৃণমূল ভবনে বৈঠক ডেকেছেন কলকাতার মেয়র তথা রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। সেই বৈঠকে ডাকা হয়েছে বিধাননগর পুরনিগমের সমস্ত তৃণমূল কাউন্সিলরদের।

সূত্রের খবর, সেই বৈঠকে ডাকা হয়নি মেয়র তথা রাজারহাট-নিউটাউনের বিধায়ক সব্যসাচী দত্তকে। শুধু তাই নয় শনিবার বিধাননগরে সরকারি অনুষ্ঠানে ডাক না
পাননি সব্যসাচী দত্ত। লোকসভা নির্বাচনের আগে সব্যসাচী দত্তের বাড়িতে গিয়েছিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ পদ্ম শিবিরের নেতা একসময়ের বন্ধুর বাড়িতে দু’ঘণ্টা সময়ও কাটান৷ মুকুল রায়ের আচমকা আগমন ঘিরে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা শুরু হয় সব্যসাচী দত্ত বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন ৷ এর পর থেকেই দলের দূরত্ব বাড়ছিল। এই অবস্থায় গতকাল শুক্রবার বকেয়া ডিএ-র দাবিতে বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীদের সংগঠন বিদ্যুৎ ভবনে হাঙ্গামা করে৷ পুলিশের সঙ্গে আইএনটিটিইউসি কর্মী, সমর্থকদের ধস্তাধস্তিতে ভাঙে বিদ্যুৎ ভবনের প্রবেশদ্বারের কাঁচ৷ সেই বিক্ষোভ কর্মসূচির নেতৃত্বে ছিলেন সব্যসাচী দত্ত।

স্বভাবতই, সব্যসাচীর এহেন আচরণে অস্বস্তি বেড়েছে রাজ্যের শাসকদলের অন্দরে। তৃণমূল ভবন সূত্রে খবর, এমন দলবিরোধী কার্যকলাপের জেরে সব্যসাচীর উপর চটেছে শীর্ষ নেতৃত্ব। তাঁকে নিয়ে এবার সিদ্ধান্ত নিতেই তৃণমূল ভবনে বিধাননগরের কাউন্সিলরদের সঙ্গে ফিরহাদ হাকিম বৈঠক করবেন বলে মনে করা হচ্ছে এবং তা সব্যসাচীকে বাদ দিয়েই করা হচ্ছে। যার জন্য আগামিকাল, রবিবার তৃণমূল ভবনে বৈঠক ডেকেছেন কলকাতার মেয়র তথা রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। সেই বৈঠকে ডাকা হয়েছে বিধাননগর পুরনিগমের সমস্ত তৃণমূল কাউন্সিলরদের। সূত্রের খবর, সেই বৈঠকে ডাকা হয়নি মেয়র তথা রাজারহাট-নিউটাউনের বিধায়ক
সব্যসাচী দত্তকে। শোনা যাচ্ছে তাঁকে মেয়র পদ থেকে সরানোর ভাবনাও শুরু হয়েছে ।
বৈঠকে ডাক না পাওয়ার প্রসঙ্গে সব্যসাচী দত্ত বলেছেন, ‘এই বৈঠকের প্রসঙ্গে আমার কিছু জানা নেই। ডাকলে অবশ্যই যাব।’

মেয়র পদ থেকে তাঁকে সরানো হতে পারে প্রসঙ্গে তাঁর স্পষ্ট বক্তব্য, ‘এমন কোনও
জল্পনার কথা আমার জানা নেই। দল যা সিদ্ধান্ত নেবে মেনে নেব।’ বিদ্যুৎ ভবনে হাঙ্গামার বিষয়ে তিনি বলেছেন, ‘তিন বছর ধরে বিদ্যুৎ দফতরের কর্মচারীদের ডিএ পাননি। রাজ্য সরকারের অন্য দফতরগুলির কর্মচারীদের বেতন বাড়লেও বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীরা সেই সুবিধা থেকে বঞ্চিত। কর্মীদের দাবি নিয়েই শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি হিসাবে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যোগ দিই।’ তবে তাঁর দাবি, ‘ভবনের দরজার কাঁচ
আন্দোলনকারীরা ভাঙেনি।’

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *