পঞ্চায়েত প্রতিমন্ত্রীর খাসতালুক গোয়ালপোখরে চলছে বেআইনি প্যাথল্যাব

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | August 4, 2019 | 11:19 am

দীপঙ্কর দে, ইসলামপুর: রাজ্যের পঞ্চায়েত প্রতিমন্ত্রীর খাস তালুক গোয়ালপোখরে লোধন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচয়ের মদতে চলছে বেআইনি প্যাথল্যাব। পাশাপাশি ওই ল্যাবেই রাতের অন্ধকারে চলছে বেআইনি প্রসব ও গর্ভপাতের রমরমা কারবার। উত্তর দিনাজপুরের গোয়ালপোখর ব্লকের লোধন ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র লাগোয়া স্থানীয় এক বাসিন্দার বাড়িতে বসানো হয়েছে একটি প্যাথল্যাব। ওই ল্যাবের চিকিৎসক হিসাবে রয়েছেন হুগলী জেলার বাসিন্দা অভিজিৎ সরকার। ওই প্যাথল্যাবকে দেওয়া স্বাস্থ্য দপ্তরের লাইসেন্সে দেখা গিয়েছে ২০১৯ সালের জুন মাসে ইস্যু করা হয়েছে। ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ এবং রিনিউয়াল আবেদনের জন্য ২০১৯ সালের জুলাই উল্লেখ করা হয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, স্বাস্থ্য দপ্তর কি তাহলে অভিজিৎ সরকারকে এক মাসের জন্য প্যাথল্যাবের লাইসেন্স দিয়েছিলেন ? না কি জাল লাইসেন্স দেখিয়ে বিএমওএইচের মদতে বেআইনি প্যাথল্যাব চালাচ্ছেন অভিজিৎ সরকার ? যদিও স্থানীয়দের অভিযোগ, লোধন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচ রামেশ্বর ঘোষ তাঁর ঘনিষ্ঠ লোককে দিয়ে প্যাথল্যাবের এই বেআইনি কারবার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ। লাইসেন্সবিহীন অভিজিৎ সরকারের ল্যাবে বিএমওএইচ নিজেই সব রোগীকে রক্ত সহ বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে যাবার জন্য পরামর্শও দিচ্ছেন বলে অভিযোগ। এছাড়াও স্বাস্থ্যকেন্দ্র লাগোয়া ওই ল্যাবেই রাতে অবৈধভাবে প্রসব ও গর্ভপাত করানো হচ্ছে বলে বাসিন্দাদের অভিযোগ।
উল্লেখ্য, যেখানে প্রাতিষ্ঠানিক প্রসবের হার বাড়াতে রাজ্যের স্বাস্থ্যদপ্তর কোটি কোটি টাকার বিজ্ঞাপন থেকে শুরু করে বেশকিছু কর্মসূচী পালন করে চলেছে। সেখানে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসক বা বিএমওএইচ এর মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে বসে কিভাবে রমরমিয়ে বেআইনি কারবার চালাতে পারেন বিএমওএইচ রামেশ্বর ঘোষ। এবিষয়ে প্যাথল্যাবের চিকিৎসক অভিজিৎ সরকার বলেন, তাঁকে স্বাস্থ্য দপ্তর লাইসেন্স দিয়েছেন, প্রয়োজনে জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে জিজ্ঞাসা করতে। এছাড়াও উনি মন্ত্রীর লোক যা করার করে নিতে হুমকিও দেন তিনি। গোয়ালপোখরের লোধন ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচ রামেশ্বর ঘোষ বলেন, লাইসেন্সে হয়ত ভুল প্রিন্ট হয়েছে তবে আমি এবিষয়ে কিছু বলবো না।
জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রকাশ মৃধা বলেন, ওই প্যাথল্যাবকে আমি এর আগে বন্ধ করার নোটিশ দিয়ে এসেছিলাম। এখনও ওটা কেন খোলা রয়েছে আমি সেবিষয়ে দেখছি। বিএমওএইচ যদি জড়িত থাকে প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গোয়ালপোখরের বিধায়ক তথা পঞ্চায়েত প্রতিমন্ত্রী গোলাম রব্বানী বলেন, উনি হুগলীর লোক, আমার লোক কেন হতে যাবেন। তবে বিএমওএইচের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক অভিযোগ এসেছে। মানুষের জীবন নিয়ে খেলা করা বেআইনি প্যাথল্যাবের কারবার চলতে দেওয়া যাবে না। আমি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে খতিয়ে দেখে অবশ্যই পদক্ষেপ নেব।

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট