অবশেষে হাইলাকান্দির জেলা পরিষদ সভানেত্রী ফারহানা যোগ দিলেন বিজেপিতে

 

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: হাইলাকান্দির জেলা পরিষদ সভানেত্রী ফারহানা বেগম চৌধুরী শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দিলেন। এআইইউডিএফ-এর টিকিটে নির্বাচিত জেলা পরিষদ সদস্য ফরহানা বেগম চৌধুরী বিজেপিতে যোগদানের খবরে জেলার রাজনৈতিক মহলে তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। গত ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে ফারহানা বেগম এআইইউডিএফ-র টিকেটে হাইলাকান্দির রাঙ্গাউটি নিতাইনগর জেলাপরিষদ আসন থেকে জিতেছিলেন। আজ গুয়াহাটিতে দলের প্রদেশ সদর দফতরে বিজেপি সভাপতি রঞ্জিতকুমার দাস তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে দলে বরণ করেন। হাইলাকান্দি জেলা পরিষদের সভানেত্রী ফারহানা বেগম গেরুয়া দলে যোগদানের সঙ্গে সঙ্গে হাইলাকান্দি জেলা পরিষদও বিজেপির দখলে চলে গেছে। ১১ সদস্যের হাইলাকান্দি জেলা পরিষদে বিজেপির সদস্য সংখ্যা চার।

অন্যদিকে এআইইউডিএফ-টিকেটে নির্বাচিত সদস্যের সংখ্যা হচ্ছে ছয়। এছাড়া এই জেলা পরিষদে অসম গণ পরিষদের একজন সদস্য রয়েছেন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর বিজেপি একজন অগপ সদস্যের সমর্থন নিয়ে এআইইউডিএফ-এর ফারহানা বেগম চৌধুরীকে জেলা পরিষদের সভাধিপতি বানিয়ে বোর্ড দখল করেছিল। কিন্তু পরবর্তীতে দলীয় কর্মীদের চাপে পড়ে পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিলেন ফারহানা বেগম। তাঁকে একসময় ঘোষণা করতে হয়েছিল, তিনি এআইইউডিএফ-এর সঙ্গেই আছেন। যদিও  সে-সময় হাইলাকান্দি জেলা বিজেপি সভাপতি সুব্রত নাথ সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, হাইলাকান্দি জেলা পরিষদ বিজেপির দখলেই রয়েছে। এভাবে জেলা পরিষদের  কর্তৃত্ব নিয়ে বিজেপি এআইইউডিএফ-এর মধ্যে দড়ি টানাটানি অব্যাহত ছিল। এরই মধ্যে আজ এআইইউডিএফ নেত্রী ফারহানা বেগম আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে নাম লিখিয়ে হাইলাকান্দি জেলা পরিষদে বিজেপির দখলদারি পাকা করে দিয়েছেন। এদিন গুয়াহাটিতে বিজেপি কার্যালয়ে ফারহানা বেগমের যোগদান উপলক্ষে এক সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। এতে প্রদেশ বিজেপি সভাপতি রঞ্জিতকুমার দাসের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে হাইলাকান্দি জেলা পরিষদের সভানেত্রী ফারহানা বেগম বিজেপিতে যোগ দিয়ে বলেন, হাইলাকান্দির সার্বিক উন্নয়নের কথা চিন্তা করে তিনি এআইইউডিএফ-এর সঙ্গ ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। বিজেপির নেতৃত্বেই উন্নয়ন সম্ভব বলে তিনি দাবি করেছেন। প্রদেশ বিজেপি সভাপতি রঞ্জিতকুমার দাস ফারহানা বেগমকে দলে স্বাগত জানিয়ে হাইলাকান্দিবাসীর কল্যাণে কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন। এছাড়া এই যোগদান অনুষ্ঠানে হাইলাকান্দি জেলা বিজেপি সভাপতি সুব্রত নাথ সংক্ষিপ্ত বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে ফারহানা বেগম সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

বর্তমানে হাইলাকান্দি জেলা পরিষদের প্রত্যেক সদস্যই বিজেপির সঙ্গে রয়েছেন বলে দাবি করেন। ফারহানা বেগমের বিজেপিতে যোগদান উপলক্ষে আয়োজিত আজকের অনুষ্ঠানে আলগাপুর মণ্ডল বিজেপি সভাপতি এবং পাঁচগ্রাম কালিনগর জেলা পরিষদ সদস্য বুল্টি দাসের স্বামী পৃথ্বীশ দাসও বক্তব্য পেশ করেছেন। জেলার উন্নয়নের স্বার্থে ফারহানা বেগমের এআইইউডিএফ ত্যাগ জরুরি ছিল বলে তিনি মন্তব্য করেন। এছাড়া এই অনুষ্ঠানে বিজেপির প্রাক্তন জেলা সভাপতি গোবিন্দলাল চ্যাটার্জি, হুমরান আহমেদ, বিভাস সিংহ এবং মুখ্যমন্ত্রীর ওএসডি শেখর দে-ও উপস্থিত ছিলেন।

ওএসডি শেখর দে এই পরিবর্তনকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এখন থেকে হাইলাকান্দি জেলার উন্নয়নে আরও গতি আসবে। এদিকে হাইলাকান্দি জেলা পরিষদের সভানেত্রী ফারহানা বেগমের বিজেপিতে যোগদানের খবরে হাইলাকান্দি জেলায় বিপরীতমুখী প্রতিক্রয়া দেখা দিয়েছে। একদিকে বিজেপি শিবিরে উল্লাস বিরাজ করলেও, অন্যদিকে এআইইউডিএফ শিবিরে বিষাদের কালো ছায়া নেমে এসেছে। হাইলাকান্দি জেলা এআইইউডিএফ সভাপতি আফজল হুসেন তীব্র ক্ষোভ ব্যক্ত করে বলেন, তাঁর  দলের জেলা পরিষদ সদস্য ফারহানা বেগম তাঁদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। এ ধরনের ব্যক্তি বিজেপির সঙ্গেও বিশ্বাসঘাতকতা এবং জেলাবাসীর সঙ্গে বেইমানি করবেন বলে মন্তব্য করেন আফজল হুসেন।

(Visited 10 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here