ত্রিপুরায় রাজনৈতিক সংঘর্ষ, এফআইআর বিজেপির

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | July 9, 2019 | 8:29 am
রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত উত্তর ত্রিপুরা

ধর্মনগরে রাজনৈতিক সংঘর্ষ : ২১ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর, দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি করলো বিজেপি

আগরতলা: রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত উত্তর ত্রিপুরা জেলার ধর্মনগর এখনও থমথমে৷ রবিবারের ঘটনায় বিজেপির পক্ষ থেকে সোমবার ২১ জনের বিরুদ্ধে ধর্মনগর থানায় এফআইআর করা হয়েছে৷ ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবিধির ১৪৮/১৪৯/১২-(বি)/৩০৭/৩২৬/৩৭৯/২৩৫ ধারায় মামলা রুজু হয়েছে৷ ধর্মনগর থানার পুলিশ জানিয়েছে, দুলু মিয়াঁ, ফজলু মিয়াঁ, ফলু মিয়াঁ-সহ ২১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করাছে বিজেপি৷ সে-অনুযায়ী মামলা নথিভুক্ত হয়েছে।

এদিকে, অভিযুক্তরা বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে বলে সূত্রের দাবি৷ কারণ, তাদের গতকাল রাতে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকার ১৮৬৩ নম্বর পিলারের কাছে দেখা গিয়েছে৷ সূত্রের আরও দাবি, ওই পিলার সংলগ্ন ২৫০ মিটার এলাকায় এখনও কাঁটাতারের বেড়ানির্মাণ হয়নি৷ তাই, সেখান দিয়ে তাদের বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে৷

আজ সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপি-র প্রদেশ কমিটি এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত দোষীদের কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছে৷

প্রসঙ্গত, রবিবার ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েতনির্বাচনের প্রচার করতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছিলেন শাসক দল বিজেপি-র যুবসংগঠনের কর্মীরা৷ পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল ২০টি মোটরবাইক এবং একটি গাড়ি৷ আক্রমণে বিজেপির ৭ জন কর্মী আহত হয়েছেন৷ তাদের প্রথমে ধর্মনগর জেলা হাসপাতালেনিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখান থেকে দু-জনের অবস্থা সঙ্কটজনক হওয়ায় একজনকে আগরতলায় জিবি হাসপাতালে, অপরজনকে অসমের শিলচর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে৷

আজ সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপি-র প্রদেশ কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজীব ভট্টাচার্য জানান, রবিবার বিজেপি যুবমোর্চার ২৫/৩০ জন কর্মী পশ্চিম চন্দ্রপুর এলাকায় দলীয় প্রার্থীদের সমর্থনে বাইকনিয়ে প্রচারে বের হয়েছিলেন৷ তখনই সিপিএমের খাস তালুক বলে পরিচিত পশ্চিম চন্দ্রপুর এলাকায় দাগি নেশা কারবারি দুলু মিয়াঁ ও তার ভাই ফজলু মিয়াঁর নেতৃত্বে বিজেপি কর্মীদের উপর দা, লাঠি ইত্যাদিনিয়ে সংঘবদ্ধ হামলা চালানো হয়৷ ঘটনার আকস্মিকতায় বিজেপি-র কর্মী সমর্থকরা হতভম্ব হয়ে পড়েন৷ কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই রক্তাক্ত হন সাতজন যুবকর্মী৷ তিনি জানান, তাঁদের বাইকগুলিতে স্থানীয় দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করে৷ তাতে ২০টি বাইক পুড়ে ছারখার হয়ে যায়৷ সাথে একটি গাড়িও পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা৷

রাজীববাবু বলেন, এলাকায় অসামাজিক কাজের জন্য পরিচিত দুলু মিয়াঁ৷ বাম জমানায় হেরোইন, ফেন্সিডিল, গাঁজা ইত্যাদির রমরমা ব্যবসা ছিল তার৷ কিন্তু এখন সারা ত্রিপুরায় নেশা বিরোধী অভিযান জোরদার হওয়ায় তার ব্যবসা মন্দা চলছে৷ রাজীব ভট্টাচার্যের কথায়, পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই গতকাল তারা হামলা চালিয়েছিল৷ কারণ, দুলু মিয়াঁর গাড়িতে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল বলে জানা গিয়েছে৷ তিনি ওই ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন৷

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *