সুবিধাভোগীদের জন্যই বন্যার ক্ষতিপূরণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অসম! উঠছে প্রশ্ন

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: অসম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে এখনও পর্যন্ত ক্ষতিপূরণের টাকা পৌঁছল না। এই অবস্থাকে ঘিরে ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করেছে গোটা রাজ্যে। এর মধ্যে সবচেয়ে  শোচনীয় অবস্থা দিসপুরের। অভিযোগ উঠেছে, সুবিধাভোগীরা সমস্ত সুবিধা ভোগ করছে। আর ক্ষতিগ্রস্তরা করুণ পরিস্থিতি শিকার হচ্ছে।

প্রশ্ন উঠেছে, নির্দিষ্ট সময় পার হয়ে গেলে কেন এখনও পর্যন্ত ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়া গেল না! সবচেয়ে সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে অসমের দিসপুরের মানুষ। সময়মতো বন্যা ত্রাণের টাকা তহবিলে না এসে পৌঁছনায় শিবিরে থাকা শরনার্থীদের জন্য কাপড় ও বাসনপত্র কেনা সম্ভব হয়নি।

রাজ্য সরকার আগে জানিয়েছিল, শিবিরে থাকা শরনার্থীদের পরিবার পিছু ৩৮০০ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। সেই টাকায় কাপড় ও বাসনপত্র কেনা হবে। কিন্তু তার এখনও কোনও দেখা নেই।

এমনকী বন্যায় যারা সব হারিয়েছেন তাঁদের মধ্যে ৯০ শতাংশ পরিবারও এখনও প্রতিশ্রুতি মতো প্রাপ্য টাকা পায়নি। পাশাপাশি ৮০ শতাংশ পরিবার যাদের বাড়ি-ঘর বন্যায় ভেসে গিয়েছিল তারাও একই অবস্থার শিকার।

{আরও পড়ুন:অসম বইমেলায় এসে মাতৃভাষা প্রসারে জোর দিতে বললেন উপরাষ্ট্রপতি}

মুখ্য সচিব ত্রাণ শিবিরের জন্য তালিকা অনুমোদন করেন। কিন্তু রাজ্য কমিটি এখনও এই ধরনের কোনও তালিকা পায়নি বলে জানা গেছে। রাজ্যর একাংশ মানুষের কথায় এই অবস্থা থেকেই বোঝা যায়, রাজ্যের মানুষ কি ধরনের পরিস্থিতির শিকার।

প্রসঙ্গত, অসমের বন্যায় চলতি বছরে প্রায় দেড় লক্ষ হেক্টর জমি জলের তলায়। এদের মধ্যে এমন অনেক ক্ষতিগ্রস্ত জেলা আছে যাদের নাম বন্যায় ত্রাণের তালিকায় স্থান পায়নি।

নিয়মানুসারে পঞ্চায়েতের কাছে প্রথমে কোন কোন গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার তালিকা জমা পড়বে। তারা সেই তালিকার সত্যতা যাচাই করে জেলাশাসকের কাছে জমা পড়বে। সেই তালিকা যাবে রাজস্ব বিভাগের কাছে।  ওই বিভাগ থেকে সেই তালিকা যাবে অর্থ মন্ত্রকের কাছে।

অভিযোগ উঠেছে, কেন একমাত্র সুবিধাভোগীদের কারণে ক্ষতিগ্রস্তরা তারা প্রাপ্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে? তাহলে কি সর্ষের মধ্যে ভূত!

bipasha

(Visited 19 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here