দিল্লি গেল বিজেপির প্রার্থী তালিকা

ইন্দ্রানী দাশগুপ্ত, নয়া দিল্লি: আগামী ২৫ তারিখ রাজ্যে যে তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হতে চলেছে তার সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করে ইতিমধ্যেই দিল্লিতে শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে পাঠিয়েছে বঙ্গ বিজেপি। সম্ভবত কালিয়াগঞ্জ কেন্দ্র থেকে লড়াই করবেন বিজেপির জেলা পরিষদের বিজয়ী প্রার্থী কমল দাস, খড়গপুর সদর থেকে লড়বেন প্রেম চন্দ্র ঝা। এবং করিমপুর থেকে মনোনয়ন পেতে চলেছেন বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার। সব ঠিক থাকলে দু-তিন দিনের মধ্যে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করবে বিজেপি। ২০১৯- এর লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে মেদিনীপুর এবং রায়গঞ্জ দুটি লোকসভাতে বিপুলসংখ্যক ভোটে জয়ী হন বিজেপি প্রার্থীরা। বিশেষত রায়গঞ্জ কেন্দ্রে কংগ্রেসের হেভিওয়েট প্রার্থী দীপা দাশমুন্সি এবং সিপিএম এর ২০১৪-এর বিজয়ী প্রার্থী মোঃ সেলিম কে হারিয়ে লোকসভায় যান বিজেপির দেবশ্রী চৌধুরী।
দেবশ্রীর জয় কে মান্যতা দিয়ে তাকে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রীও করা হয় দ্বিতীয় মোদি সরকারে। কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রটি যেহেতু রায়গঞ্জ লোকসভার অন্তর্গত তাই এই কেন্দ্রটিতে বিজেপির জয় অবশ্যম্ভাবী বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। খড়গপুর সদর এই কেন্দ্রটি আগেও ছিল বিজেপির দখলে। এখানকার বিধায়ক ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিগত লোকসভা নির্বাচনে খড়গপুর সদর থেকে জয়ের মার্জিন ও বাড়িয়েছে বিজেপি। তাই এই কেন্দ্রটিও বিজেপি পাবে বলেই আশা করছেন রাজ্য নেতৃত্ব। শুধুমাত্র করিমপুর বিধানসভা থেকে বিগত লোকসভা নির্বাচনে ৪৩ শতাংশ ভোট পেয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু সারা রাজ্যের মতোই এক্ষেত্রেও কংগ্রেস এবং বাম জোট কে পিছনে ফেলে দিয়ে প্রায় ৫০ হাজারেরও বেশি ভোট বৃদ্ধি পায় বিজেপি প্রার্থী। এবং তৃণমূল প্রার্থীর ভোট কমে ৩ শতাংশ।

{আরও পড়ুন:অর্থনীতি চাঙ্গা করতে ১ লক্ষ কোটি ব্যয়ে ১০০ টি বিমানবন্দর তৈরি করতে চায় কেন্দ্র}

ভোট প্রাপ্তির নিরিখে এই ৩ বিধানসভাকেই পাখির চোখ করে এগোচ্ছে রাজ্য বিজেপি। তবে এক্ষেত্রে রাজ্য বিজেপির জয়ের পথে কাঁটা হতে পারে কংগ্রেস এবং সিপিএম জোট। এই প্রসঙ্গে বিজেপি কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মুকুল রায় বললেন, কোন জোট বা তৃণমূল কেউই আর বিজেপিকে পশ্চিমবঙ্গে আটকাতে পারবে না। তিনটি আসনেই বিপুল ভোটে বিজয়ী হব আমরাই । করিমপুর প্রসঙ্গে তিনি বলেন মনে রাখতে হবে করিমপুরে কিন্তু ১৪ হাজার ভোট পড়েছিল নোটাতে। ওখানে যদি আমরা সাধারণ মানুষের কাছে আরও বেশি করে মোদি সরকারের জনমুখী নীতি এবং এনআরসির উপকারিতা বোঝাতে পারি তাহলে অন্য দুটি বিধানসভার মতোই করিমপুরে ও জিতব আমরাই। কারণ বাংলার মানুষ এটা ঠিক করে নিয়েছেন যে এই তৃণমূল সরকার কে বরখাস্ত করতেই হবে। এবং বিজেপির হাত ধরে কেন্দ্রীয় সরকারের জনমুখী নীতিগুলির সুযোগ-সুবিধা পেতে হবে।

bipasha

(Visited 25 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here