‘নো স্বচ্ছ ভারত উইদাউট ক্লিন এয়ার’, সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে প্রতিবাদে বিদেশি কূটনৈতিকরা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক;  যেদিকে দু’চোখ যায়, শুধু ধোয়া আর ধোয়া। দূষণের জেরে দিল্লির বাতাসের গুণমান সূচক বিপদসীমা পেরিয়েছে৷  আর দূষণ নিয়ে যখন কেন্দ্র-রাজ্য গুলি একে অপরকে দূষতেই ব্যস্ত সেই সময় রাজধানীর বুকে দাঁড়িয়ে দূষণের জন্য সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানালেন বিদেশি রাষ্ট্রের কূটনৈতিকরা।

সম্প্রতি ইন্ডিয়া গেটের সামনে শহরবাসী ‘লেট মি ব্রিদ’ প্রতিবাদ জানান শহরবাসি৷ এই ঘটনায় কর্মীদের স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন একাধিক দেশের দূতাবাস।

দিল্লির ফরাসি দূতাবাস জানিয়েছে, পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণে ২০১৬ সাল থেকে একাধিক পদক্ষেপ করেছে ৷ দূতাবাস চত্বরে রাখা হয়েছে এয়ার পিউরিফায়ার ৷ চিনের  দূতাবাস কর্মীদের  বিশেষ পলিউশন মাস্ক ব্যবহারের নির্দেসহ দিয়েছে সে দেশের সরকার।  দূতাবাস ও কর্মীদের আবাসনে ব্যবস্থা করা হয়েছে বিশেষ এয়ার পিউরিফায়ারের। একই অবস্থা তিউনিশিয়া সহ আফ্রিকার একাধিক দেশের। দূষণের জেরে বহু বিদেশি দূতাবাসের কর্মীরাই গৃহবন্দী হয়ে দিন কাটাচ্ছে বলে  জানা  গিয়েছে। অসহায় অবস্থা তাঁদের পরিবারের অন্যান্যদেরও।

“দরিদ্র শ্রেনীর সকলের পক্ষে এয়ার পিউরিফায়ার কেনা সম্ভব নয়। ‘ট্রায়াল অ্যান্ড এরর হলেও সরকারের উচিতপরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রনে আন্তরিকভাবে সচেষট হওয়া”। এমনটাই জানিয়েছেন জার্মান রাষ্ট্রদূত ওয়াল্টার লিন্ডনার।

দিল্লির দূষণের জেরে বেশ কিছুদিনস্কুল কলেজ বন্ধ থাকার পর অবশেষে একে একে খুলছে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলি।

এদিকে দূষণ পরিস্থিতি এখনও স্বাভাবিক না হলেও অব্যাহত রাজনৈতিক চাপান উতোর। পাঞ্জাব ও হরিয়ানার চাষিদের খড় পোড়ানোর জন্য দিল্লির দূষণ অন্যতম কারণ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আনতে পারলে সেসমস্ত জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের শাস্তির নির্দেশেও দিয়েছে সর্ব্বোচ্চ আদালত।

 

@স্বর্ণার্ক ঘোষ

 

(Visited 12 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here