বাংলা চলচ্চিত্রের বিখ্যাত অভিনেতা ছবি বিশ্বাসের মৃত্যুদিন আজ

বাংলা চলচ্চিত্রের বিখ্যাত চরিত্রাভিনেতা। তিনি ১৯০০ সালের ১৩ জুলাই কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। ‘অন্নপূর্ণার মন্দির’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনেতা হিসেবে তার প্রথম আত্মপ্রকাশ।
ছবি বিশ্বাস ছিলেন যে কোনো চরিত্র রূপায়ণে স্বাভাবিক অভিনয় প্রয়াসী অভিনেতা। তার অভিনীত কয়েকটি স্মরণীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম চোখের বালি, কাবুলিওয়ালা, শুভদা, প্রতিশ্রুতি, জলসাগর, দেবী, সবার উপরে, কাঞ্চন-জঙ্ঘা, হেডমাস্টার ইত্যাদি। ১৯৩০ থেকে ১৯৬০-এর দশকজুড়ে তিনি একাদিক্রমে বহু বাংলা চলচ্চিত্রে চরিত্রাভিনেতা হিসেবে অভিনয় করে যান এবং ব্যাপক দর্শকনন্দিত হন।
তিনি নাট্যাভিনেতাও ছিলেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর অন্যতম সমাজ, ধাত্রী পান্না, মীর কাসিম, দুই পুরুষ, বিজয়া ইত্যাদি।
ছবি বিশ্বাস কয়েকটি চলচ্চিত্র পরিচালনাও করেন। এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রতিকার (১৯৪৪) ও যার যেথা ঘর (১৯৪৯)।
১৯৫৯ সালে তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেতার স্বীকৃতিস্বরূপ ‘সঙ্গীত নাটক একাডেমি পুরস্কার’ লাভ করেন।
বাংলা ছায়াছবির প্রতিষ্ঠালগ্নের শক্তিমান এই অভিনেতা ১৯৬২ সালের ১১ জুন কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।

১৯০০ সালে জন্ম নেওয়া মানুষটি বাংলা ছবিকে হাত ধরে পৌঁছে দিয়েছেন আধুনিকতার আঙিনায়। আর মঞ্চের ছবি বিশ্বাসও তো শুধু পটে নয়, ইতিহাসেও লেখা। বাঙালিরা শিল্প নিয়ে কথা কইতে গেলে ‘যুগ’ শব্দটি বলতে বড় ভালবাসেন। রবীন্দ্র যুগ, অহীন্দ্র যুগ। সে কালের থিয়েটার-ভক্তরা বলেন, অহীন্দ্র চৌধুরী-শিশিরকুমার ভাদুড়ীর পর বাংলার মঞ্চে ছিল ছবি বিশ্বাস যুগ। তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘দুই পুরুষ’, মনোজ বসুর কাহিনি-আধারিত ‘ডাকবাংলো’, দেবনারায়ণ গুপ্ত-র ‘শ্রেয়সী’, ‘ঝিন্দের বন্দী’, কত ঐতিহাসিক নাটক! শিশির ভাদুড়ীর ভাই ছিলেন ছবি বিশ্বাসের সহপাঠী, তাই শিশিরবাবুকে ‘বড়দা’ বলতেন। কাছ থেকে অভিনয় দেখেছেন, শিখেছেন, তার পর পালটেছেন সেই অভিনয়কে। ম্যানারিজম-হীন সেই অভিনয়ের গা বেয়ে চুঁইয়ে পড়ত চরিত্রের আভিজাত্য, দাপট, কারুণ্য, ভাঙচুর। ফিল্ম-কেরিয়ারের তুঙ্গ পর্যায়ে ন’বছর বাদ পড়েছিল মঞ্চাভিনয়, শরীরও ভালো যাচ্ছিল না। ডাক্তারের অনুমতি নিয়ে যে দিন স্টার থিয়েটারে ফিরলেন, বুকিং অফিস খুলতেই লম্বা লাইন, প্রতিটা শো হাউসফুল। বক্স অফিস টানেন নায়ক-নায়িকারা আর ছবি বিশ্বাস— এ ছিল অমোঘ সত্য।

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *