সিএলডব্লিউ বেসরকারীকরণের পথে? বাবুলের ইঙ্গিত সেদিকেই

চিত্তরঞ্জন লোকোমেটিভ ওয়ার্কস-এর বেসরকারীকরণ নিয়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়

আসানসোল: চিত্তরঞ্জন লোকোমেটিভ ওয়ার্কস বা সিএলডিব্লুউ-র বেসরকারীকরণ নিয়ে ইতিমধ্যেই তোলপাড় হতে শুরু হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এমন সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরেই চিত্তরঞ্জন রেল কারখানায় আন্দোলন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই শ্রমিক ইউনিয়নগুলি বিক্ষোভ প্রদর্শন করে সিএলডব্লুউ-র জেনারেল ম্যানেজারকে স্মারকলিপি জমা দিয়েছে। শ্রমিক নেতারা জানিয়েছিলেন তারা বিষয়টি নিয়ে সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়েরও দ্বারস্থ হবেন। কোনভাবেই চিত্তরঞ্জন রেল কারখানাকে বেসরকারীকরণ তারা হতে দেবেন না। কিন্তু বুধবার রাতে সাংবাদিকসম্মেলন করে বাবুল সুপ্রিয় কার্যত বিলগ্নিকরণের পক্ষেই সওয়াল করলেন। তার বক্তব্য বেসরকারীকরণ মানেই কিন্তু কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়া নয়। কারখানার গ্রাফ দেখে উন্নতিকরণের স্বার্থেই পিপিপি মডেলে কারখানাকে নিয়ে আসা হলে কারখানা বাঁচবে সঙ্গে শ্রমিকদেরও উন্নতি হবে। আর বাবুল সুপ্রিয়ের এই মন্তব্যের পরেই রাজনৈতিক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে আসানসোলে। আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তেওয়ারি বলেন, “গোটা সরকারটাই পিপিপি মডেলে চলছে। তাই অসাধু ব্যাবসায়ীদের সাথে হাতে হাত মিলিয়ে বাবুল সুপ্রিয় চিত্তরঞ্জন রেল কারখানার বেসরকারীকরণে সায় দিচ্ছেন।”

গত কয়েকবছর ধরে নির্দিষ্ট লক্ষমাত্রা পুরণে সচেষ্ট চিত্তরঞ্জন লোকোমেটিভ ওয়ার্কস। এই কারখানার কর্ম সংস্কৃতি অনান্য কারখানার গুলির থেকে থেকে আলাদা। সেভাবে দেখতে গেলে চিত্তরঞ্জন লোকোমেটিভ ওয়ার্কসে কখনও বনধ, ধর্মঘট কিছু হয়নি। সংস্থাটি লাভজনক সংস্থা হিসেবেই চলছে বলে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতা নেপাল চক্রবর্তী। নেপাল বাবুর মতে, কোনভাবেই একটি লাভজনক সংস্থাকে বিলগ্নিকরণ আমরা করতে দেব না। প্রয়োজনে বৃহত্তর আন্দোলনে যাব।

বাবুল সুপ্রিয় বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে এ প্রশ্নের উত্তরে বলেন, লাভজনক সংস্থার সাথে বেসরকারিকরণের কোন সম্পর্ক নেই। একটি সংস্থার গ্রাফ কেমন হ তার উপর নির্ভর করে সব কিছু। উদাহরণ দিয়ে তিনি জানান, হিন্দুস্থান কেবেলসে কিন্তু ২০০২ সালে উত্পাদন বন্ধ হয়ে যায়। যে কেবেল হিন্দুস্থান কেবেলস তৈরি করত তার বর্তমানে কোন দাম নেই। কারন এখন অপটিক ফাইবার হয়। অথচ ২০০২ সাল থেকে কোম্পানীর শ্রমিকদের সঠিক তথ্য না দিয়ে তাদের সাথে প্রতারণা করা হয়। ২০১৭ সালে দেখা যায় ৬ হাজার কোটি টাকা ক্ষতিতে চলছে কারখানা। তাই বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এধরনের কোন পরিস্থিতি যাতে তৈরি না হয় সেই কারণেই পিপিপি মডেলে চিত্তরঞ্জন কারখানাকে নিয়ে যাওয়া ভাবনা চিন্তা করা হচ্ছে।

 

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *