কাটমানি ইস্যুতে উত্তপ্ত বীরভূম

0
15

কাটমানিকে ইস্যুতে উত্তপ্ত সদাইপুর, পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমাবাজি  

বীরভূম: কাটমানিকে কেন্দ্র করে কার্যত রণক্ষেত্র বীরভূমের সদাইপুর থানা এলাকার সাহাপুর গ্রাম। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় গ্রামবাসীরা ওই এলাকার তৃণমূল নেতা এনামুলের বাড়ি ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান। সে সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসলেও বুধবার সকাল হতেই ফের রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় সাহাপুর গ্রাম।

এদিন সকাল থেকে এনামুল হক ও তাঁর লোকজন বাড়ির চারপাশ থেকে এলোপাথাড়িভাবে এলাকাজুড়ে বোমাবাজি শুরু করে। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছালো পুলিশকে লক্ষ্য করেও শুরু হয় বোমাবাজি। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বোমাবাজির​জেরে কিছুক্ষণের জন্য এলাকা কার্যত ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। পরে সিউড়ি পুলিশ লাইন থেকে ডিএসপি ডিএনটি অভিজিৎ মণ্ডলের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনীকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য আনা হয়।স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, এলাকায় প্রথম পুলিশ ঢুকতে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা মারে দুষ্কৃতীরা। পরে বিশাল পুলিশ বাহিনীকে পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে। এরপরই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। ঘটনার জেরে এলাকার পরিস্থিতি থমথমে, চলছে পুলিশি টহল দাড়ি।

প্রসঙ্গত বীরভূম জেলার অন্যান্য এলাকার মতো সাহাপুর গ্রামে কাটমানি ইস্যুতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণে বার বার শিরোনামে এসেছে। কিছুদিন আগেই সাহাপুর এলাকার তৃণমূলের প্রধানকে বাড়িতে গিয়ে মারধরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলে অপর গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। সেই গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের কথা কার্যত স্বীকার করে নেয় তৃণমূলের​শীর্ষ নেতৃত্ব। যদিও প্রকাশ্যে ক্যামেরার সামনে তাঁরা মুখ খুলতে নারাজ ছিলেন। সেই সাহাপুর কাটমানি ইস্যুতে আবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল।

স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব শেখ নবীর দাবি করেন, ‘আমাদের এখানকার তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি এনামুল হক দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ইস্যুতে কাটমানি নিয়ে সেই টাকা আত্মসাৎ করেছে। আমরা সেই টাকা ফেরত চাইতে গেলে আমাদের লক্ষ্য করে মুড়ি-মুড়কির মতো বোমা ছুঁড়তে থাকে। পুলিশকেও ভয় পাইনি দুষ্কৃতীরা। পুলিশ এবং সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনেই বোমাবাজি করতে থাকে।’ অন্যদিকে তৃণমূল নেতা এনামুল হক জানান, ‘আমি কোনও প্রকার বোমাবাজির সঙ্গে যুক্ত নই। বরং ওরাই সিপিআইএম, কংগ্রেস ও বিজেপির লোকেরা একত্রিত হয়ে আমাদের উপর চড়াও হয় আর বোমাবাজি করে।’

সকাল থেকে এমন ব্যাপক পরিমাণে বোমাবাজিতে এলাকা সন্ত্রাসের চেহারা নিলে সিউড়ি সদর মহকুমার ডিএসপি ডিএনটি অভিজিৎ মণ্ডলের নেতৃত্বে এলাকায় চলে চিরুনি তল্লাশি। সেই তল্লাশিতে বোমাবাজির ঘটনায় যুক্ত থাকার সন্দেহে এলাকার তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি এনামুল হক ঘনিষ্ঠ আটজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

(Visited 1 times, 1 visits today)