২০ জুলাইয়ের আগে অনিশ্চিত ট্রেন-পরিষেবা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক | July 16, 2019 | 3:19 am

লামডিং-বদরপুর পাহাড় লাইনে ২০ জুলাইয়ের আগে অনিশ্চিত ট্রেন-পরিষেবা

হাফলং (অসম): লামডিং-বদরপুর ব্রডগেজ রেলপথে ট্রেন চলাচল কবে নাগাদ শুরু হবে এ-নিয়ে এখনও রয়েছে প্রবল অনিশ্চয়তা। উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ আগামী ২০ জুলাই পর্যন্ত পাহাড় লাইনে সব ধরনের ট্রেন চলাচল বাতিল করে দেওয়ায় এই অনিশ্চয়তা আরও প্রবল হয়ে উঠেছে।

প্রচণ্ড বর্ষণের দরুন ধস-বিধ্বস্ত এলাকায় কাজ করতে গিয়ে রেল কর্মীদের বেগ পেতে হচ্ছে। এতেই সংশয় দেখা দিয়েছে, আদৌ আগামী ২০ জুলাইয়ের আগে লামডিং-বদরপুর পাহাড় লাইনে ট্রেন চলাচল সচল হয়ে ওঠবে কিনা। উল্লেখ্য, গত ১২ জুলাই থকে নাগাড়ে বর্ষণের দরুন নিউহাফলং ও জাটিঙ্গা লামপুরের মধ্যবর্তী ১১০/৪.৫ কিলোমিটার অংশে ১০০ মিটার জায়গা জুড়ে রেলওয়ে ট্র্যাকের নীচে মাটি পাহাড় থেকে নেমে আসা জলে ধুয়ে নিয়ে যাওয়ার জেরে পাহাড় লাইনে গত তিন দিন থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধ। রেল কর্মীরা যুদ্ধকালীন তৎপরতার সঙ্গে রেলওয়ে ট্র্যাক মেরামতির কাজ করে চললেও বৃষ্টির ফলে কাজে বিঘ্ন ঘটাচ্ছে।

বর্তমানে নিউহাফলং ও জাটিঙ্গা লামপুরের মধ্যে ১১০/৪.৫ কিলোমিটার অংশের কাজের যা অগ্রগতি এতে করে ২০ জুলাইয়ের আগে লামডিং-বদরপুর ব্রডগেজ রেলপথে ট্রেন চলাচল শুরু হওয়া নিয়ে রয়েছে সংশয়। বর্তমানে নিউহাফলং ও জাটিঙ্গা লামপুরের মধ্যবর্তী অংশে রেলট্র্যাক তুলে ফেলা হয়েছে এবং সে জায়গায় মাটি ভড়াট-সহ ট্র্যাকের পাশে ধসে যাওয়া মাটি পাথর ও নেট দিয়ে আটকানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। পাহাড়ে বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় এখনও মাটি ধসে পড়ছে। তাই বৃষ্টি বন্ধ না হলে ওই রুটে পুনরায় ট্রেন চলাচল শুরু হতে আরও কিছুদিন সময় লেগে যেতে পারে বলে রেল সূত্রে জানা গিয়েছে। তবে বর্তমানে পাহাড় লাইনের ধস-বিধ্বস্ত এলাকা বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে। এমতাবস্থায় আগামী সপ্তাহ-দশদিনের আগে কোনও অবস্থায় পাহাড় লাইনে রেল পরিষেবা সচল হওয়ার কোনও সম্ভাবনা একপ্রকার নেই, বলেছে সূত্রটি।

এদিকে উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেলের মুখ্য জনসংযোগ অফিসার প্রণবজ্যোতি শর্মা জানিয়েছেন, লামডিং-বদরপুর ব্রডগেজ রেলপথে ধস নেমে আসার দরুন আগামী ২০ জুলাই পর্যন্ত সব ধরনের ট্রেন চলাচল বাতিল করা হয়েছে।

ক্লিক করুন এখানে, আর চটপট দেখে নিন ৪ মিনিটে ২৪টি টাটকা খবরের আপডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *