প্রবল বর্ষণে বিপর্যস্ত অসম

বরাক উপত্যকার সব নদী ফুঁসছে, প্লাবিত বহু নিচু এলাকা

শিলচর (অসম): গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে বরাক উপত্যকার সব নদীতেই জল বাড়ছে। বরাক-সহ তার উপনদীগুলিও ইতিমধ্যে বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। উপত্যকার গ্রামাঞ্চলে বহু নিচু এলাকা প্লাবিত হয়ে গেছে। বহু এলাকার মানুষ নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছেন।

শিলচর, বড়খলা, লক্ষ্মীপুর, কাটিগড়ায় বরাক নদী বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে। শুক্রবার রাত ১২টায় শিলচর অন্নপূর্ণাঘাটে বরাক নদী বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। রাত ১২টায় জলস্তর ছিল ১৯.৮৩ মিটার। ওই সময় জল ঘণ্টায় ৪ থেকে ৫ সেমি করে বেড়েছে। তবে শেষরাতে জল বাড়ার গতি কিছুটা কমেছে। ভোর চারটা থেকে ছয়টার মধ্যে জল মাত্র ১ সেন্টিমিটার করে বেড়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে ফের ভারী বর্ষণের দরুন সকাল ৬-টা থেকে ঘণ্টায় ২ সেমি করে জল বাড়তে থাকে। ফলে ৬-টায় অন্নপুর্ণাঘাটে যেখানে জলস্তর ছিল ২০ মিটার, সর্বশেষে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী শনিবার বিকেল ৩-টায় জলস্তর ২০.১৯ মিটারে পৌঁছেছে। বিকেল ৩টা পর্যন্ত ২ সেমি করেই জল বাড়ছে।

এদিকে, শনিবারও আকাশ ধরেনি। মুষলধারে বৃষ্টির ফলে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে। কাছাড় জেলা দুর্যোগ মোকাবিলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, বরাক নদীর অন্নপূর্ণাঘাটে নদীর জলস্তর ২০ দশমিক ১২, লক্ষ্মীপুরে ২৩ দশমিক ৯৩, আমড়াঘাটে ২১ দশমিক ৮১ এবং রুকনি নদীতে ২৪ দশমিক ২০l সবকটি নদীর জল বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মতিনগর এলাকায় ৫৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তির জলে ডুবে যাবার খবর পাওয়া গেছে। তাছাড়া কাটিগড়ায় ৩৫টি গ্রাম এবং জেলার অন্যান্য তিনটি নিচু এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ার ফলে প্রায় তিন হাজার মানুষ প্রভাবিত হয়েছেন।

এদিকে করিমগঞ্জ জেলার বদরপুরঘাটে বরাক নদীর জল আজ বিকেল ৫-টায় ১৭.৩৯ সেন্টিমিটারের উপর দিয়ে বইছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে নদীর বিপদসীমা ১৬.৮৫ সেন্টিমিটার। বদরপুরঘাটে জল বিপদসীমার ৫৪ সেমি উপর দিয়ে বইছে। অন্যদিকে করিমগঞ্জ জেলার লঙ্গাই নদীর জলস্তর ২৩.০৪ মিটার। বিপদসীমা ২২.০০ মিটার। সিংলা নদীতে জলস্তর ১৮.১৫ মিটার। বিপদসীমা ১৭.৯৮৫ মিটার। কুশিয়ারার জলস্তর ১৬.০৭ মিটার। বিপদসীমা ১৪.৯৪। সিংলা নদীতে জল স্থিতাবস্থায় থাকলেও লঙ্গাই নদীতে জল কিছুটা কমছে। কুশিয়ারা নদীতে ঘণ্টায় ১ সেন্টিমিটার করে জল বাড়ছে। বৃষ্টির গড় অনুপাত ৪৫.২৮ এমএম বলে জানানো হয়েছে।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here