২৩৫ আন-এডেড মাদ্রাসাকে বিশেষ অর্থসাহায্য রাজ্যের, কটাক্ষ সায়ন্তনের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এ বার বেশকিছু আন-এডেড মাদ্রাসাকে বিশেষ অর্থ সাহায্য দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল নবান্ন। চলতি সপ্তাহেই এ ব্যাপারে নির্দেশিকাও জারি হয়েছে। সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতর সূত্রে খবর, ২৩৫ টি আন-এডেড মাদ্রাসাকে দু-খেপে অর্থসাহায্য দেওয়া হবে। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু।

আন-এডেড মাদ্রাসাগুলির পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য অর্থ সাহায্যের দাবি বেশ কিছুদিন ধরেই উঠছিল। কিন্তু, রাজ্য সরকার তাতে কান দেয়নি। অবশেষে চলতি সপ্তাহেই নির্দেশিকা জারি করে সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, গোটা রাজ্যে ২৩৫ টি আন-এডেড মাদ্রাসাকে অর্থসাহায্য দেওয়া হবে তাদের পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য।
আন-এডেড মাদ্রাসা বাঁচাও এর দাবি তুলে বেশ কয়েকটি সংগঠন আদালতের দ্বারস্থও হয়। আদালতও বিভিন্ন সময়ে তাদের পর্যবেক্ষণে এ ধরণের মাদ্রাসাগুলিকে সাহায্যের জন্য সরকারের পদক্ষেপ করার কথা বলে। অবশেষে শিক্ষার জন্য যে পরিবেশ ও পরিকাঠামো দরকার, তা তৈরির জন্যই এই অর্থসাহায্য দেওয়া হবে। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলাশাসকদের মাধ্যমে এই অর্থ ব্যয় হবে। প্রথম দফায় ৫০ শতাংশ ও পরে কাজের অগ্রগতি বিচার করে বাকি অর্থ দেওয়া হবে।

রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন বিজেপি’র এ রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। তাঁর বক্তব্য, আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমাণ করলেন তিনি তুষ্টিকরণের রাজনীতি করেন। ইমাম ভাতা চালু করেছিলেন, এ বার এই সমস্ত মাদ্রাসার জন্য প্যাকেজ দিলেন। এরপরেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করে সায়ন্তন বলেন, আসলে উনি ভয় পেয়েছেন। আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন। বুঝে গিয়েছেন, ২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে মানুষ ওর পাশে নেই। তাই তুষ্টকরণের রাজনীতি করে গদি বাঁচাতে চাইছেন। তবে বাংলার মানুষ ওনাকে প্রত্যাখান করেছে, এভাবে গদি বাঁচিয়ে রাখতে পারবেন না।

(Visited 1 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here